...

Platform of Bengali Poetry | Best Bangla Kobita

Sharing Is Caring:

প্রভেদ – আরতি সেন

ভুলতে চাই না না অতীতটাকে
সুখের হোক বা দুঃখের
জমানো ব‍্যথা কমাতে চাই না
গল্প বলে অতীতের।
অতীতে তো অনেক কিছু ঘটেছে
ঘটছে বর্তমানে
ভবিষ্যতেও ঘটবে ঘটনা ভবিতব‍্য বলছে।

পায়েস হোক বা দুধ ভাত
একই পদার্থ আছে
পায়েস পরিপক্ব হয়েছে
দুধে ভাত মিশে আছে।

জানি সবটা বুঝি সবটা
কোনটা ঘটেছে কোন টা হয়েছে ঘটানো
বুঝি সব বলি না কিছু
বললে কেউ মানো কেউ না মানো।
অনেকের কাছে শুধু সময় কাটানো।

নতুন করে – আরতি সেন

যাবো উড়ে
বহু দূরে
মন ডানা মেলে।
মন চাই হারিয়ে যাই
কোন সে সুদূরে।
ঘুরে ঘুরে বেড়াবো
নদী ও পাহাড়ে।
মাঝে মাঝে বসবো
ঝরনার ধারে।
গল্প করবো দুজনে
মন ভরে।
কত কথা হবে
যা বলা হয়নি
এতদিন ধরে।
হারানো দিনগুলো
আবার নতুন করে
আসবে ফিরে।
আমার জীবন বেঁধেছিলাম
তোমার সাত সুরে।
আমার জীবনে তুমি
লাল রং দিয়েছিলে ভরে।
রামধনু রং সেজেছিল
দুজনের অন্তরে।।

জোছনায় ভরা যামিনী – আরতি সেন

আকাশ জুড়ে বসন্তের আহ্বান
বইছে ধীরে দক্ষিণা পবন।
মাঘী পূর্ণিমায় জোছনার আকর্ষণ
মন মানে না ঘরে শুধুই আনমন।
বন থেকে বনে কিসের আয়োজন?
বাজছে ধামসা বাজছে মাদল
নাচছে মন বলছে মুখে নৃত‍্যের বোল
কেউ নয় একা জুটি দুই থেকে চার
কেউ বা বন্ধু,কেউবা স্বজন, কেউ নয় আজ পর।
আকাশ জুড়ে শুধুই জোছনার আহ্বানে করছে মন কেমন;
দূর থেকে দূরে শাল পিয়ালের বন।
জোছনার আলোতে লাল শিমুলের রাঙা যৌবন খুশিতে মগন।
এত আলো প্রকৃতির কোলে
গাছের ছায়ার ফাঁকে ফাঁকে চাঁদ পড়ে ঢলে।
লুকোচুরি খেলা চাঁদ প্রকৃতিতে
জোছনার নাচন ঢেউয়ের তালেতে।
আমি নয় আজ খুব উদাসীন
জোছনা মাখা মন বেদুইন।
বেড়ায় ঘুরে বাতাসের সাথে
জোছনায় হারায় দূর আকাশেতে।
প্রকৃতির সাথে প্রহর গণি
মাঘী পূর্ণিমা জোছনায় ভরা যামিনী।।

বাংলা মাতৃভাষা – আরতি সেন

মা
প্রথম শব্দ
কান্না আর্তি হোক
অথবা ব্যাকুল আহ্বান।
মা
একটি শব্দ
অতুলনীয় বাংলা শব্দ।
বাংলা শব্দে গঠিত বাংলা শব্দে উচ্চারিত,
মাতৃভাষা আমার; তোমার; আমাদের গর্বের ভাষা।
রাজার ভাষা প্রজার ভাষা
জনসাধারণের ভাষা
ধনীর ভাষা দরিদ্রের ভাষা
আবেগ প্রকাশের ভাষা
আনন্দ প্রকাশের ভাষা।
সুখের ভাষা দুঃখের ভাষা।
কলকাকলিতে পরিপূর্ণ ভাষা
রক্তস্রোতের বিনিময়ের ভাষা
লড়াই করে প্রাপ্ত মর্যাদার ভাষা।
শ্রেষ্ঠ ভাষা জীবনের আশা বাংলাভাষা।
ভাইয়ের রক্তে স্নাত মাতৃভাষা
প্রতিটি শব্দে প্রতিটি অক্ষরে অক্ষরে
মিশে আছে বাংলাভাষা শহীদদের রক্ত বিন্দু
বাংলাভাষা জয় করেছে সপ্তসিন্ধু
বিশ্ব মাঝে জয় করেছে শ্রেষ্ঠত্ব।

সন্তানের সংলাপ – আরতি সেন

বাবা মাকে একলা রেখে
ঘরে কিম্বা বৃদ্ধাশ্রমে।
থাকি আমি বিদেশ বিভূমে
কাটে দিনরাত্রি পরিশ্রমে।

এটাই কি নিয়তি
বিধির রীতি?
উঠতে বসতে মাকে পড়ে মনে
অন্য কথা বলে আত্মীয় স্বজনে।
পিতামাতাকে ছেড়েছি রোজগারের কারণে।

সন্তান যেন থাকে দুধেভাতে
নিজেরা কাটালে ডালভাতে।
আমি আজ আছি দুধেভাতে
চোখে আসে মা জল প্রতিরাতে।

খাওয়ার শেষে ওষুধ জুড়েছে শেষ পাতে
তবুও সন্তানের ফোন পেলে
হাসি ফোটে জল ভরা চোখেতে।

মাগো আমিতো তোমার নয়নের মণি
তুমিও আমার স্নেহ আদরের জননী।
বাবার কথা তো সবার উপরে
ঈশ্বর যেন নেমে আসেন সংসারে।
দায়িত্বের ফাঁকে ফাঁকে সন্তান স্নেহ
মনে পড়ে সর্বক্ষণ যেন মাথার উপরে আছেন কেহ।
ছায়া যেমন প্রখর রৌদ্রের
ছাতা যেমন বৃষ্টির জলের।
ত‍্যাগের প্রতীক তিনি স্বয়ং মহাদেব।
পার্বতী মা যেন সন্তানের গণেশ ভাবাবেগ।

যতই প্রাচুর্যপূর্ণ হোক জীবন যাত্রা
সন্ন্যাস জীবন যেন পূর্ণ মাত্রা।
পিতামাতাকে না দূরে রাখলে
সন্ন্যাসী জীবন এগোবে না কোনো কালে
তেমনি গার্হস্থ্য জীবন
গৃহ থাকতেও গৃহতে নেই স্থান।

মাঘী পূর্নিমা – আরতি সেন

নিঝুম তো হয়নি এখনো রাত্রি
তবে কেন দুঃস্বপ্নরা ভয় দেখাই?
এখনো চাঁদ মধ‍্য গগনে,
তবু কেন ভয় মনে?
এখন তো সবে এসেছে বসন্ত
চাঁদের আলোয় লাল কৃষ্ণচূড়া আলোকিত।
চাঁদের আলোয় রাতের পাখিরা আনন্দে মাতে
ওরাও বসন্ত উপভোগ করে।
মাঘী পূর্ণিমার চাঁদটা ধীরে ধীরে পূর্ণাঙ্গ রূপ নিচ্ছে
এক অনাবিল আনন্দ বসন্ত রাত্রিতে
আকাশে তাই আলোর ঘনঘটা।
কল্পনায় মনে হয় যেন শুনছি দূরে কোথাও বাজছে বাঁশীর সুর।
দূর পাহাড়ের গায়ে বাজছে যেন ধামসা মাদল,
শুনছি যেন বাজছে পায়ের নূপুর।
সাঁওতালী মেয়েরা যেন তালে তালে পা ফেলে,
গলায় ও খোঁপায় পলাশ ফুলের মালা।
মন উদাস হয়ে যায় বারে বারে
বসে আছি আমি বন্ধ এক ঘরে।
কল্পনায় মনে হয় আমি বসে আছি কোন জঙ্গলে
বা পাহাড় চূড়ায় নদীর ধারে।
মহুয়া ফুলের গন্ধে বাতাস যেন মাতাল
চাঁদের আলোয় নদীর জলে আলো
মন হয়ে যায় এক নিমেষেই ভালো

বসন্ত এসেছে প্রকৃতিতে – আরতি সেন

প্রকৃতি হেসেছে প্রকৃতি সেজেছে
শীতের কুয়াশার চাদর সরিয়ে;
বসন্ত এসেছে ধরায় রক্তিম সাজে
উৎসবে মেতেছে আনন্দে ভরিয়ে।

লালে লালে ফুলে ফুলে আবিরের রঙে;
সবুজের কচি পাতা শাখা প্রশাখায়
মনকে রাঙিয়ে দেয় বসন্তের আহ্বানে
শাখায় বসে কোকিল বসন্তগীত গায়।

বসন্ত উৎসব লেগেছে প্রকৃতির আঙিনায়
প্রকৃতিতে বয়ছে যে দখিনা বাতাস,
মনেতে সারাক্ষণ খুশির আমেজ
আনন্দে মেতেছে যেন সারা আকাশ।

দোল উৎসবে দোল খেলবে সকলে
আবিরে আবিরে রং ছড়াবে খুশিতে
রঙ দেবে রঙ নেবে মিলনের সুরে
হৃদয়ে লাগলো দোলা বসন্ত উৎসবতে।

কিচিরমিচির – আরতি সেন

ছোট্ট পাখি কিচিরমিচির
করছো কানের কাছে
লেজ ঝুলিয়ে বসে আছো
আমার পেয়ারা গাছে।

রাখছো গুণে পেয়ারা গুলো
পাকলে পরে খাবে
সব খেও না একলা তুমি
আমায় দু একটা দেবে।

পেয়ার গুলো মিষ্টি ভীষণ
ভেতরটা যে লাল
তাই তো তুমি ভালোবাসো
খেয়ে উড়ে পালাও।

আমায় একটা দিতে হয় যদি
তুমি খাবে কি?
কিচিরমিচির মিষ্টি সুর
শীষ দিয়ে ডাক ভোরের বেলা
গান শোনাবে নাকি?

গান শোনাবে ঘুম ভাঙাবে
কিচিরমিচির করে করবে ঝগড়া
পেয়ারা গাছে বানাও বাসা
বাসায় বসে পাহারা দেবে কড়া।।

নতুনের আহ্বান – আরতি সেন

নতুন করে আহ্বান করি
পুরাতন সব রইলো পড়ি
পুরাতন সব শিখিয়ে গেল
নতুন এবার চক্ষু মেলো।
জ্ঞানচক্ষু খুলবে কবে?
বিলম্বেতে সব হারাবে।
পুরাতন থেকে নাও শিক্ষা
নেবে তুমি বাঁচার দীক্ষা।
সামনে পথ হোক বন্ধুর
যেতে হবে জেনো বহুদূর।
সাথে রেখো অভিজ্ঞতা
পুরাতনের বাস্তবতা।
মিছেই জীবনে বাজি ধরো
প্রাণটাকে লক্ষ্য করো।
মূল্য প্রাণের এবার বোঝো
সঠিক বাঁচার রাস্তা খোঁজো।
হারিয়ে যেতে আছে মানা
জীবন বড়ই অজানা।
একটু বেসামাল হলে
পড়ে যাবে পা পিছলে।
জীবন অনেক কষ্টে গড়া
চলবে নাকো পিছিয়ে পড়া।

তব ছায়া তলে – আরতি সেন

আমার এই পথ চলাতেই আনন্দ!
না আজ আর পথচলাতে নেই আনন্দ
আজ বৈশাখের এই তপ্ত তাপপ্রবাহে পথিক হয়েছে ক্লান্ত।
তাইতো ক্ষণিক বিশ্রাম প্রয়োজন শান্ত শীতল গাছের ছায়া
শীতল হবে পথিকের এই তপ্ত কায়া।
ওগো পথিক যেয়ো না যেয়ো না চলে
ক্ষণিক বিশ্রাম নাও এই শান্ত ছায়ে
ক্লান্তি তোমর চরণে তাই বসো কিছুকাল
সবুজের শীতলতায় জুড়াও অবয়ব মন প্রাণ ভরে।
গাছ যেন থাকে পথিকের অপেক্ষাতে সারা গ্রীষ্ম ধরে।
কখন আসবে পথিক গাছের ছায়ায় শীতল হতে।
এ যেন সন্তানের মস্তকে মায়ের আঁচল
এক নিমেষে হরণ করে কষ্ট সকল।
সবুজ শ্যামলিমা ঘেরা গাছের ছায়া
প্রকৃতির ভালোবাসার এক অদ্ভুত মায়া।
পথিক চলার পথে শীতল ছায়া খুঁজে
বৃক্ষ ছেদন নয় বৃক্ষ রোপণ হোক চলার পথের মাঝে মাঝে।

নবজাতক রূপে নববর্ষ – আরতি সেন

বৎসরের প্রথম দিনে প্রথম শুভক্ষণে
নবরূপে নবজাতক রূপে আগমন ঘটে
প্রখর তেজদীপ্ত বুদ্ধিদীপ্ত বৈশাখ নামে পরিচিত।
গাছে গাছে নব কিশলয় নব নব শাখে
কাঁচা আমের গন্ধে আকাশ বাতাস মাতে।
আকাশে কালবৈশাখীর নব মেঘের সঞ্চার
ঈশান কোণে বিদ‍্যুৎ চমকের আভাস।
বৎসরের প্রথমে শুভারম্ভ হয় শিলা সহ বৃষ্টিপাত।
নবজাতকের মত খিলখিল করে হাসে
গাছের নরম পাতার শব্দ কানে ভাসে
পুরাতন সব সরিয়ে নবজাতকের হয় উত্থান
প্রথম ঊষার আলোয় রবির তেজ যেন
নবজাতকের মতো সজীব প্রাণবন্ত।
মনে হয় যেন চেয়ে থাকি ঊষার পানে হয়ে নিমগ্ন।
ধীরে ধীর নবজাতক হয় স্বাভাবিক বিকশিত
নতুন বৎসরও নবজাতকের ন্যায় হয় সম্পূর্ণ বৎসরে সুগঠিত।

মেকি – আরতি সেন

একি আজব কায়দা
ও ভাই ও দাদা।
দেখে খাচ্ছি ভিমরি
এ কোন ব্যাপারী।
রোজ পালটাচ্ছে সঙ্গী
এ কোন ভঙ্গি?
আসল কথা একটা
পালটেছে জামানাটা।
তাই তো এমন ঘটছে
তেমন মানুষ চলছে।
অতি লোভ করো না
পিছলিয়ে পড়ো না।
জেনো সবই মেকি
দিয়ে যাবে ফাঁকি।
শ্রীমতী হলো রত্ন
চিরকাল করবে যত্ন।

সাত রঙে আঁকা ছবি – আরতি সেন

বেগুনী রঙের মেখলা মেয়ের
নীল নীর দুটি চোখ
আকাশী রঙের ওড়না গলে
সবজে জামা পরনেতে
হলুদ জরির নকশা কাটা
কমলা টিপ কপালে।
লাল লাল গালে মিষ্টি হাসি
কবি তাই তাকে ভালোবাসি।
সাত রংয়েরই কল্পনাতে
সাজলো মেয়ে মনের খুশিতে।
ওগো মেয়ে যাও কোথা যাও
ক্ষণিক সময় একটু দাঁড়াও
মনের দুকথা বলি।
ওগো মেয়ে তোমার চলন
রাজ হংসী চলে যেমন।
সাঁতার কাটে ধীর গতিতে।

পরোয়ানা – আরতি সেন

হয়তো যখন মৃত‍্যু দেবে হানা
তখন আমি বসেছি খেতে খানা।
তখনি হয়তো আসবে পরোয়ানা।
যখন রাত্রিকালে পেতেছি বিছানা।
হয়তো বা ভোরবেলা পা রেখেছি শিশির ভেজা ঘাসে
তক্ষুনি মৃত‍্যু‍ এসে দাঁড়ালো অলক্ষ‍্যে পাশে।
যেই তুলেছি চায়ের কাপটা হাতে
মৃত‍্যু যেন ডাকছে ইশারাতে।
বন্ধু চলো এবার ফেরার পালা
পারি না বাপু বলোতো কি জ্বালা।
বললাম থামো বাপু নিয়ে ব‍্যাগটা ভরে
চার পাঁচটা পরিধাপ সাথে করে।
মৃত‍্যু বলল এনেছিলে কি সাথে করে?
যাবার বেলা বসেছো ব‍্যাগ গুছাতে।
অন্তরে যা করেছো সঞ্চয়
সেটুকুই সাথে নাও দিচ্ছি অভয়।
নাকি শূন্য হৃদয় কিছুই নেই অন্তরে
টাকা পয়সা গাড়ি বাড়ি গহনাতে আছে ঘর ভরে।
এই কদিনের ছোট্ট এই জীবন
যা কিছু আছে নিত‍্য প্রয়োজন।
জীবনটাকে আগে গড়ো করে যতন
পরোয়ানা আসবে না যখন তখন।

আম দিয়ে যায় চেনা – আরতি সেন

আমের আমি আমের তুমি
আম দিয়ে যায় চেনা।
গন্ধ শুঁকে চলে বাজারে
আমের বেচাকেনা।

ল্যাংড়া সেতো ল্যাংড়া নয়
বাজার খ‍্যাত নাম
আমের সময় কিনতে
পাবে সবার চেয়ে দাম।

হিমসাগরে মিষ্টি খুবই
মধুর মতো খেতে
খেতে বসে ভাবি
কখন পড়বে পাতে।

নানা রকম আমে ভরা
গ্রীষ্মকাল জুড়ে।
কেউ যায় না কম
কেবলই মনে পড়ে।

কাঁচা আম পাকা আম
আমের পানা আমসত্ত্ব
আমগুড় আমের চাটনি
আমের অনেক বিশেষত্ব।

ও মেয়ে – আরতি সেন

ও মেয়ে তোর কেন চক্ষু ভরা জল?
আঠারো বর্ষে শপথ নে তুই করিস না নিষ্ফল।
ও মেয়ে তোর জন্মকালে
নাই বা উঠলো মুখে সোনার চামচ খাঁটি,
তা বলে তুই জীবনটাকে করিস নাকো মাটি।

দায়িত্ব তোর জীবনভর পালন করে যা,
জল বয় যে, অকারণে তৃষ্ণায় মরে না।
তোর কাছেতেই বাঁচার গল্প শেখে যে সন্তান
বাঁচার মন্ত্র শেখানো তোর অবদান।

শেখানোর আগে তুই শিখেনে শেখানোর পাঠ;
সঠিক শিক্ষা তোর জীবনকে করবেনা উৎখাত।
শিক্ষা নিবি শিক্ষা দিবি সঠিক পথের দিশা দেখাবি
আগামী প্রজন্ম তবেই শিখবে সঠিক জ্ঞানের পাঠ।

সঠিক জ্ঞানে মানুষ হলে সন্তান তোর
পাঠাবে না আর বৃদ্ধাশ্রমে।
মন্দিরেতে পুজবে চরণ পুণ্য মনস্কামে।

করিস না ভয় করতে শাসন অন্ধ স্নেহবশে
সবুরে ফল হবেই মিঠা মনের বিশ্বাসে।
মায়ের আদর্শ মায়ের জ্ঞান যথার্থ করে দান
সার্থক কর ও মেয়ে তোর জীবন সংগ্রামের সম্মান।

শব্দের মালা – আরতি সেন

পুষ্পমালা গাঁথা হয় নি
কি দিয়ে করবো কবি বন্দনা?
মনের মধ‍্যে হাজারো শব্দমালা
করেছি যে কবি রচনা।

শব্দমালা উৎসর্গ করবো তোমায়
এছাড়া আছে কোন উপায়?
তোমার কবিতা তোমার গানে
ভরাবো প্রাণের শুভেচ্ছায়।

প্রার্থনাতে মুখরিত সভা
জন্মদিনের হাজার বাহবা
কবির বাণী কণ্ঠে কণ্ঠে
জাগরণে নিশি কাটিবে দিবা।

ওগো কবি স্মরি বারবার
এসো জগত মাঝে উন্মুক্ত হোক দ্বার
শুনি একবার তোমার পদধ্বনি
তোমাতেই সকলে মুগ্ধ অপার।

মানবী ও প্রকৃতি – আরতি সেন

যখন কাল বৈশাখীর কালো মেঘের মতো একরাশ
মাথা ভর্তি কেশরাশি ছিলো
তখন তুমি কালবৈশাখীর মেঘ ভেবে ভুল করেছো
বহুবার।
আজ যখন শরতের পেঁজা তুলোর মতো সাদা রং ধরেছে কেশরাশিতে
তখন তুমি ভুল করো শরতের মেঘ ভেবে।
তুমি চিরকাল এমনই এক মানুষ।
মানবীর মাঝে প্রকৃতি দেখলে।
ভোরের আকাশের ওই লাল সূর্যকে কপালের টিপ ভাবো।
লাল ফুলের ওই পাপড়ি দিয়ে সিঁথির সিন্দুর আঁকা।।

আরতি সেন | Arati Sen

Bengali Article 2023 | শ্রমিক আন্দোলনে সুভাষচন্দ্র বসু | প্রবন্ধ ২০২৩

Bengali Novel 2023 | ফিরি বিশল্যকরণী (পর্ব ৭) | উপন্যাস

Bengali Article 2023 | আশা নিরাশার দোলাচলে বাঁকুড়া জেলার কাঁসা শিল্প

Bengali Article 2023 | চিরায়ত ধর্মমঙ্গলের স্বাতন্ত্র্য | প্রবন্ধ ২০২৩

Shabdodweep Web Magazine | High Challenger | Shabdodweep Founder | Sabuj Basinda | Bengali Poetry | Bangla kobita | Platform of Bengali Poetry 2024 | Poetry Collection | Book Fair 2024 | bengali poetry | bengali poetry books | Platform of Bengali Poetry pdf | Bengali Poem Lines for Caption | bangla kobita | poetry collection books | poetry collections for beginners | poetry collection online | poetry collection in urdu | Platform of Bengali Poetry Ebook | poetry collection clothing | new poetry | Platform of Bengali Poetry Notice | new poetry in hindi | Platform of Bengali Poetry Wikipedia | new poetry books | new poetry sad | new poems | new poems in english | new poems in hindi | Bengali Poem Lines for Caption in pdf | new poems in urdu | bangla poets | indian poetry | indian poetry in english | indian poetry in urdu | indian poems | indian poems about life | indian poems about love | indian poems about death | Best Bengali Poetry Folder | Best Bengali Poetry Folder 2024 | story writing competition india | story competition | poetry competition | poetry competitions australia 2023 | poetry competitions uk | poetry competitions for students | poetry competitions ireland | Bengali Poem Lines for Caption crossword | writing competition | writing competition malaysia | Bengali Poem Lines for Caption in mp3 | writing competition hong kong | writing competition game | Best Bengali Poetry Folder pdf | Trending Platform of Bengali Poetry | Platform of Bengali Poetry – video | Shabdodweep Writer | bee poem | poem about self love | story poem | poetry angel | narrative poetry examples | poetry reading near me | prose poetry examples | elegy poem | poetry reading | poetry websites | protest poetry | prayer poem | emotional poetry | spoken word poetry | poem about god | percy shelley poems | jane hirshfield | spiritual poems | graveyard poets | chapbook | poems about life | poems to read | English Literature | Platform of Bengali Poetry examples | poems about life and love | elizabeth bishop poems | poems about women | sister poems that make you cry | famous quotes from literature and poetry | mothers day poems from daughter | poem about community | Platform of Bengali Poetry Ranking | positive Best Bangla Kobita Collection | Bengali Poem Lines for Caption about life struggles | toni morrison poems | good bones poem | google Platform of Bengali Poetry | funny poems for adults | inspirational poems about life | friendship poem in english | paul laurence dunbar poems | freedom poem | sad poetry about life | freedom poem | sad poetry about life | Natun Bangla Kabita 2023 | Kobita Bangla Lyrics 2023 book | New Platform of Bengali Poetry | Writer – Platform of Bengali Poetry | Top Writer – Platform of Bengali Poetry | Top poet – Natun Bangla Kabita 2023 | Poet list – Kobita Bangla Lyrics 2023 | Archive – Platform of Bengali Poetry | Bangla Full Kobita | Online Full Kobita Bangla 2023 | Full Bangla Kobita PDF | New Bangla Kabita Collection | Shabdodweep Online Poetry Story | Poetry Video Collection | Audio Poetry Collection | Bangla Kobitar Collection in mp3 | Bangla Kobitar collection in pdf | Indian Bengali poetry store | Platform of Bengali Poetry Archive | All best bengali poetry | Indian Platform of Bengali Poetry | Best Poems of Modern Bengali Poets | Best Collection of Bengali Poetry in pdf | Bengali Poetry Libray in pdf | Autograph of Bengali Poetry | India’s Best Bengali Writer | Shabdodweep Full Bengali Poetry Book | Bengali Poetry Book in Google Bookstore | Google Bengali Poetry Book | Shabdodweep World Web Magazine | Shabdodweep International Magazine | Top Poems of Modern Bengali Poets | Kobita Lyrics Poetry in Bengali | Modern Bengali Poetry | Short Bengali Poems | List of Poetry | Bengali Poetry of Passion | Read Bengali Poems Online | Shabdodweep Poetry | Shabdoweep Poertry Wikipedia | Poetry Wrting Competiton 2024 | Windword Poetry Prize | Conversations with poets | Platform of Bengali Poetry secrets

Leave a Comment

Seraphinite AcceleratorOptimized by Seraphinite Accelerator
Turns on site high speed to be attractive for people and search engines.
Seraphinite AcceleratorOptimized by Seraphinite Accelerator
Turns on site high speed to be attractive for people and search engines.