আপনার মতামত [Feedback]

আপনার মতামত [Feedback]


"আন্তরিক অনুভূতি
- বিশ্বজিৎ কর

শব্দদ্বীপ ......
সুস্থতার প্রদীপ! 
নতুন প্রতিভার আঁতুড়ঘর..... 
বিষয়ভিত্তিক কবিতাঘর! 
পরিচ্ছন্ন সংস্কৃতির ক্যানভাস....... 
সাবাস শব্দদ্বীপ, সাবাস!"

লিখেছেন - বিশ্বজিৎ কর - ২৮শে অক্টোবর, ২০২১


"শব্দদ্বীপের সাহিত্য চর্চামূলক কর্মকান্ডে লেখার সুযোগ পেয়ে আমি আনন্দিত। অনেক গুণী সুধীজনের প্রচেষ্টায় এই ওয়েব ম্যাগাজিনটিতে আমার মতো নতুন লেখনী চর্চার মানুষজন সুযোগ পেয়ে এগিয়ে যেতে পারবে। মাতৃভাষা চর্চার মাঝে আবেগ ভালোবাসা জড়িয়ে থাকে। সংসার জীবনের আবদ্ধ গন্ডীর বাইরে একমুঠো সতেজ হাওয়ায় মন প্রাণ জুড়িয়ে নিতে শব্দদ্বীপের প্রয়াসকে সাধুবাদ জানাই। পূজা সংখ্যাটি ও অনবদ্য এবং রুচিশীল সংকলন হয়েছে। এই কর্মকান্ডে জড়িয়ে থাকা সকল পৃষ্ঠপোষকদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই। শব্দদ্বীপের কলমেরা আলো পেয়ে এগিয়ে চলুক-এই কামনা করি।"

লিখেছেন - কুহেলী দাশগুপ্ত - ২৯শে অক্টোবর, ২০২১


"শব্দ দ্বারা গঠিত দ্বীপের বাসিন্দা আমরা। শব্দদ্বীপ আমাদের সুখী পরিবার, সমৃদ্ধ পরিবার। চলতে থাকা বহু ওয়েব-ম্যাগের দুনিয়ায় শব্দদ্বীপের একটা পৃথক স্বাতন্ত্র্য আছে এবং আঙ্গিক বৈশিষ্ট্যে এমন কিছু আকর্ষণীয় উদ্যোগ আছে, যার দ্বারা শব্দদ্বীপ সহজে দেশে বিদেশে লেখক এবং পাঠকবর্গকে আকৃষ্ট করছে ; কেবল আঙ্গিকগত  বৈচিত্রে নয়, পরিচালনগত দক্ষতায় ও আন্তরিক সহমর্মিতায় মুগ্ধ হয়ে  মজে আছি শব্দদ্বীপে,যথাসাধ্য থাকার মনোবাসনা র‌ইলো। প্রযুক্তি নির্ভর সাহিত্য পত্রিকাটির এত দ্রুত সমৃদ্ধি সম্ভব হয়েছে,মূল কান্ডারি ভাই সুপম রায় এবং তার দুই সর্বক্ষণের সহযোগী প্রিয়ঙ্কা ভুঁইয়া ও মৌমিতা দত্ত এবং অন্তরালে থাকা টীম-শব্দদ্বীপ -এর অপরাপর সদস্যবৃন্দের নিরলস কর্ম প্রচেষ্টার ফলে। সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানাই সকৃতজ্ঞ আন্তরিক অভিনন্দন।"

লিখেছেন - প্রবোধ কুমার মৃধা - ৩০শে অক্টোবর, ২০২১


"প্রথমেই শব্দদ্বীপ এর সাথে সংযুক্ত সকল মানুষকে বিজয়ার শুভেচ্ছা ও প্রাক দীপাবলির শুভকামনা জানাই।
'শব্দদ্বীপ' নামটি শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে সাহিত্যভান্ডারের এক সার্থক বিন্যাস যেখানে একইসাথে সুযোগ ঘটে গল্প,কবিতা,শিল্পকলা,ফোটোগ্রাফির সাথে পরিচিত হওয়ার। নতুনভাবে শিল্পের আঙিনায় নিজেকে মেলে ধরার সুযোগ পান বহু মানুষ। আপনাদের প্রয়াস সত্যিই অসামান্য। উত্তরোত্তর শ্রীবৃদ্ধি কামনা করি 'শব্দদ্বীপ' এর।"


লিখেছেন - প্রাঞ্জলিকা দে - ১লা নভেম্বর, ২০২১


"শতবর্ষের ওপারে শব্দদ্বীপ ম্যাগাজিন
- শ্যামল চক্রবর্তী (সবুজ)
 
দূরাভাষে শব্দদ্বীপ মজার ম্যাগাজিন। 
করছো প্রকাশ, কবির বিকাশ নেই তো উপমান।
 কৃষ্টি কত তোমার সৃষ্টি ,করি তোমায় সেলাম।
 যুগিয়েছে প্রেরণা , পুষ্পটিত কত কবি আর সাহিত্যিক।
নতুন দিশা হদিশ দিল নেট দুনিয়ায় শব্দদীপ-ম্যাগাজিন।
তোমার আঁচল মহৎ কতো এইতো পরিচয়।
আশায় মোরা বুক বেঁধেছি, কলম দিয়ে স্বপ্ন কতো।
 শতবর্ষের ওপার থেকে, পাই দেখা ঐ ম্যাগাজিন।
বলবো তোমায় বারে বারে , সেলাম আদাব প্রণাম সেলাম।"

লিখেছেন - শ্যামল চক্রবর্ত্তী - ১লা নভেম্বর, ২০২১


"আশির দশক থেকে সাহিত্য জগতে পদার্পণ। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখালেখি করি,করছিও। সর্ব ভারতীয় পত্রিকায় ও লেখালেখি আছে। কিন্তু এতো আন্তরিক হয়ে পড়িনি কখনো অচেনা কোন পত্রিকার জন্য। কেন জানি না সম্পাদনা করা প্রতিটা মানুষ কেমন যেন আন্তরিক। লেখক দের প্রতিভার উন্মেষ ঘটানোর কি প্রচেষ্টা থাকলে এমন কাজের সঙ্গে জড়িত থাকা যায়, নিজেকে যুক্ত না করলে জানতে পারতাম না । সাধুবাদ জানিয়ে ও নিজেকে খুশি করতে পারছিনা। তাই আর্শীবাদ করছি শব্দদ্বীপ কে আরো জনপ্রিয় করতে সকলের প্রত্যাশা পূরণ করুন, প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকুক।"

লিখেছেন - জয়নাল আবেদিন - ১লা নভেম্বর, ২০২১


প্রথমেই বলি, 'শব্দদ্বীপ' নামটা পার্সোনালি আমার ভীষণ পছন্দ হয়েছে। শব্দদ্বীপ নামটা শুনেই প্রথমতঃ এই পরিবারের সাথে যুক্ত হতে ইচ্ছে হয়েছে। শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিনে আমার প্রথম কবিতা যেদিন প্রকাশ পেয়েছিল সেদিনকার খুশি শব্দ দিয়ে বর্ণনা করার ভাষা আমার সত্যিই জানা নেই।  আপনাদের সাহিত্য পরিবারের সাথে যুক্ত হতে পেরে আমি সত্যিই আপ্লুত। এতো ভালো ভালো লেখনি পড়ার সৌভাগ্য হচ্ছে, প্রতি মুহূর্তে কিছু না কিছু শিখতে পারি প্রকাশিত লেখনিগুলির মাধ্যমে। আমি শব্দদ্বীপের একজন লেখিকা বলে নিজেকে দাবি করতে পারিনা। সেই পর্যায়ে এখনো পৌঁছাতে পারিনি। তবে অবশ্যই একজন নিয়মিত পাঠক। আপনাদের প্রচেষ্টাকে কুর্নিশ জানাই। লেখনীর অমৃত ধারায় 'শব্দদ্বীপ' সাহিত্য পরিবার আরও জনপ্রিয়তা অর্জন করুক এই কামনাই করি।

লিখেছেন - অদিতি (আইভিলতা) - ৩রা নভেম্বর, ২০২১


শব্দবনে অন্যমনে খেলার ছলে পদ্য গড়ি
পদ্য ছিল কান্না ঘাম আর পদ্য ছিল সোনার সীতা
পড়শি এসে প্রশ্ন করে সময় কেন নষ্ট করি
স্বর্ণমুদ্রা না জমিয়ে নকল সোনার ম্লান কবিতা
শব্দ দিয়ে পালিশ করে মিথ্যে কেন গড়তে থাকি
টাকার স্রোতে গা ভাসালে দেখবি বিরাট সুখের প্রাসাদ
শব্দ খাঁচার দরজা খুলে দে উড়িয়ে পদ্য পাখি
তখন থেকে ধন আহরণ, বিদায় নিল পদ্য বিষাদ
হঠাৎ দেখি অথই জলে, ঐশ্বর্য গিলতে আসে
ডুবতে ডুবতে শেষ মুহূর্তে শব্দদ্বীপে আশ্রয় পাই
ঝড় বৃষ্টি বন্ধ হলো, মেঘ সরিয়ে সূর্য হাসে
ছোট্ট বাসস্থানের আর্জি তাদের আমি তখন জানাই
প্রাসাদ না হোক, শব্দদ্বীপে আমার জন্য স্বস্তি কুটির
পদ্য পাখি ফিরেই দেখে অপেক্ষাতে প্রশান্ত নীড় ।


লিখেছেন - সুজিত বসু - ৪ঠা নভেম্বর, ২০২১


এক্কেবারে মনের কথা বলতে গেলে, বলতে হয় "শব্দদ্বীপ" অনবদ্য সাহিত্য বিষয়ক প্রকাশ মাধ্যম।শব্দদ্বীপের আভ্যন্তরীণ ত্রিশক্তি নীরবে কাজ করে চলেছেন। তাঁরা হলেন- প্রিয়াঙ্কা ভুঁইয়া, মৌমিতা দত্ত, সুপম রায়। ওই সাহিত্যবন্ধু ত্রয়ের তুলনা নেই। তাঁরা কবি-লেখকের প্রতি এতটাই সহৃদয়, ভাবা যায় না।
    শব্দদ্বীপের মতো খুব কম সাহিত্য ই-সংগঠন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা বহন করছেন। এমন সংগঠন যতই বাড়বে কবি-লেখকের সৃষ্ট সাহিত্য ততই অধিক সংখ্যক পাঠকের কাছে পৌঁছবে।
     আমি আশা করি "শব্দদ্বীপ" সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে যাবে। পরিচারক ত্রয়ীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা, শুভকামনা  ও অভিনন্দন জানাই।

লিখেছেন - শিবপ্রসাদ পুরকায়স্থ - ৫ই নভেম্বর, ২০২১


বহুল আলোচিত ওয়েব ম্যাগাজিন শব্দদ্বীপকে অশেষ শুভেচ্ছা । আন্তর্জাতিক মানের কবি লেখকদের সাথে থেকে নিজেকে তুলে ধরতে  অনবদ্য।
লেখালেখির পরিপূর্ণতা অর্জন করতে হলে এখানে যুক্ত হতেই হবে । সাপ্তাহিক, পাক্ষিক পর্বের জন্য লেখা চাওয়ার বিজ্ঞাপনের প্রতিটি আইডিয়া ভালো।প্রতিযোগিতার বিজয়ী লেখককে অনলাইনে সনদ প্রদানের বিষয়টি প্রদায়ক । আশ্বস্তের ব্যাপার হচ্ছে লেখকের লেখা প্রকাশের আগে সম্পাদক আগাম সম্পাদকীয়, সম্ভাব্য লেখক তালিকা প্রকাশ করেন।

লিখেছেন - মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ - ৫ই নভেম্বর, ২০২১


শব্দদ্বীপ একটি ওয়েব ম্যাগাজিন। পত্রিকার সম্পাদক মণ্ডলীকে সাধুবাদ জানাতেই হয়।
আশির দশক থেকে আমার লেখালেখি শুরু, দেশ বিদেশের বহু লিটল ম্যাগাজিনে লিখেই চলেছি । বর্তমানে অনলাইন পত্রিকায় সাহিত্য চর্চা শুরু হয়েছে বহু অনলাইন পত্রিকা দেখছি কিছু পত্রিকাতে অনবরত লিখছিও যে কটা অনলাইন পত্রিকাকে প্রথম সারিতে রাখা যায় শব্দদ্বীপ তার মধ্যে একটি।
এত অল্প সময়ে নিষ্ঠার সাথে যে ভাবে নতুন পুরানো লেখক / লেখিকাদের পাশে থেকে লেখার প্রেরণা যুগিয়ে চলেছে তা অন্যদের ক্ষেত্রে তেমন একটা চোখে পরে না। দিন দিন লেখক এবং পাঠকের সংখ্যা বেড়েই চলছে।  আমি মনে প্রাণে পত্রিকার শুভ কামনা করি, পত্রিকার শ্রী বৃদ্ধি হোক সেজে উঠুক সাহিত্যর ডালা নিয়ে।

লিখেছেন - গৌতম তালুকদার - ৬ই নভেম্বর, ২০২১


শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিনের সাহিত্যের প্রতি আনুগত্য এবং অনুরাগ এক কথায় দৃষ্টান্ত মূলক। পরিচালন সমিতির প্রতিটি কাজ সুপরিকল্পিত এবং নান্দনিকতার ছোঁয়া রেখে যায়।
লেখক লেখিকার সৃষ্টিকর্মকে এগিয়ে নিয়ে সাহিত্যের খোলা অঙ্গনে পরিচয় করিয়ে দেবার কাজ এনারা খুব সততার সঙ্গেই করে থাকেন। এতে করে যারা লেখালেখিতে নিজেদের জড়িয়ে রেখেছেন তারা অবশ্যই উৎসাহিত বোধ করবেন।
লেখার মান বিচারটা সংখ্যা গরিষ্ঠ মন্তব্যের ওপর না ছেড়ে, সম্পাদক মন্ডলীর একান্ত বিচার বিবেচনার উপর ছাড়লে ভাল হয়। এটা আমার নিজস্ব মতামত।
আমি শব্দ দ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিনের সর্বাত্মক উন্নতি কামনা করি। আরও নতূন উদ্ভাবনীর পরিচয় সহ শব্দ দ্বীপ এগিয়ে চলুক।

লিখেছেন - অমিতাভ দত্ত - ৯ই নভেম্বর, ২০২১


শব্দদ্বীপ, প্রকৃত-ই একটি শব্দ শিল্পকলার রাষ্ট্র। যেখানে বাস করে বিষয় ভিত্তিক শব্দালংকার-কাব্য ঝংকার তৈরীর ইঞ্জিনিয়াররা। যারা নিশি-দিন নিত্যদিন সাহিত্য শিল্পকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। এই শব্দদ্বীপ রাষ্ট্রের রাষ্ট্রনায়ক হলেন সাহিত্য, আর এই রাষ্ট্রের লেখকরা হলেন এই রাষ্ট্রের বৈধ বাসিন্দা। যাদের কাজ হলো- কবিতা, গল্প, অংকন, ফটোগ্রাফি, ধারাবাহিক, প্রবন্ধ ও আবৃত্তি রচনা ও বুনন করা। এই সাহিত্য শিল্প রচয়িতারা শব্দদ্বীপ রাষ্ট্রটিকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরছে নিজস্ব কারিশমায়- নিজস্ব নব নব উদ্ভাবিত শিল্পকলায়। ধরণীর সমস্ত সৃষ্টির বাঁক পরিবর্তনের ধারায়- সাহিত্যকে তথা বিশ্বকে উপহার দিচ্ছে নবধারার আবিস্কার। সেই শব্দদ্বীপ রাষ্ট্রের বাসিন্দা হতে পেরে আমি গর্বিত ও  প্রীত।

লিখেছেন - জাফর পাঠান - ৯ই নভেম্বর, ২০২১


আপনারা যেভাবে অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে বিভিন্ন লেখকের সুনিপুণ লেখা যাচাই বাছাই করে সাহিত্যের একটা সুদ্ধ মৌলিক রূপ দাঁড় করানোর চেষ্টা করতেছেন-তাতে আমাদের সাহিত্য খুব শীঘ্রই এক অনন্য উচ্চতায় পৌছে যাবে। আপনাদের এই ম্যাগাজিন এর মাধ্যমে বিশ্ব সাহিত্য ভাণ্ডার আরো সমৃদ্ধশালী হবে।

লিখেছেন - মোঃ আসাদুজ্জামান আসলাম - ২৪শে নভেম্বর, ২০২১


শব্দদ্বীপের সঙ্গে বলতে গেলে এটা প্রায় আমার প্রথম দিকের কাজ, যদিও এর আগে কয়েকটি লেখা "কিশোর ভারতী" এবং ফটোগ্রাফি "নবকল্লোল বিশেষ সংখ্যা" -য় প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু, আমার বেশিরভাগ লেখা, ফটোগ্রাফি এখনও পর্যন্ত "শব্দদ্বীপ" -এর সঙ্গে ভাগ করে নিই। এমনকি মাঝেমধ্যে যখন যেমন মনের মধ্যে যে অনুভূতি, আবেগ, ভাবনার সৃষ্টি হয়, তখন সেইসব অনুভূতিগুলি "শব্দদ্বীপের quote" -এ পাঠিয়ে দিই। "শব্দদ্বীপ" আমার কাছে পরিবারের মতো আর আমি নিজেকে সেই পরিবারের একজন বলে মনে করি। "শব্দদ্বীপ" আরও এগিয়ে চলুক, আরও উচ্ছসিত খ্যাতি অর্জন করুক। পরিবারের কর্ণধার এবং সকল সদস্যদের প্রতি অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও শুভ কামনা রইল।

লিখেছেন - নীলেশ নন্দী - ২৯শে নভেম্বর, ২০২১


শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিন একটি উন্নতমানের পত্রিকা। পত্রিকাটি দুই বাংলায় জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ থেকে এই পত্রিকার বেশ কয়েকটি সংখ্যায় আমাকে লেখার সুযোগ দেওয়ার জন্য  আমি সম্পাদক মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞ। এই সুযোগ আমার লেখার জগৎকে আরও সমৃদ্ধ এবং প্রসারিত করেছে। প্রতিটি লেখকের লেখা পড়ে আমি মুগ্ধ হয়েছি। আমি শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিনের উত্তরোত্তর উন্নতি ও সাফল্য কামনা করি। 

লিখেছেন - ড. মির্জা গোলাম সারোয়ার পিপিএম - ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১


শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিন একটা খুব ভালো সাহিত্য গ্রুপ। দীর্ঘদিন ধরে এই গ্রুপে আমি লেখালেখি করছি। এই গ্রুপে যারা লেখেন তাঁদের লেখার মান মানে লেখার উৎকর্ষতা নিঃসন্দেহে তারিফ করার মতো। আমি চাই এই সাহিত্য গ্রুপ তার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য বজায় রেখে এগিয়ে চলুক। এই সাহিত্য গ্রুপের উওরোত্তর শ্রীবৃদ্ধি কামনা করি। সেই সঙ্গে এডমিন দের প্রশংসা না করে পারছি না। তাঁরাই তো আমাদের সাহিত্য কর্মে সহায়তা করে চলেছেন। শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিন সকল সাহিত্যপ্রেমী মানুষের কাছে পৌঁছে যাক এই কামনা করি। সবাই আমরা একসাথে থেকে একে অপরের বন্ধু হয়ে সাহিত্য চর্চা করব, তাতে শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিন আমাদের পথ প্রদর্শকের কাজ করবে বলে মনে করি। জয় হোক শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিনের।। 

লিখেছেন - বৃন্দাবন ঘোষ - ৮ই ডিসেম্বর, ২০২১


এত ভালো প্ল্যাটফর্মে আমার কবিতা জমা দিতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত এবং আশা করি শব্দদ্বীপ ম্যাগাজিনে আমার কাজ উপস্থাপন করতে থাকব এবং যাতে একটি শক্তিশালী বন্ধন তৈরি হয় আগামী দিনে।

লিখেছেন - প্রসেনজিত দাস - ১০ই ডিসেম্বর, ২০২১


প্রথমেই জানাই নববর্ষের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

  ছাত্র জীবনে স্কুল ও কলেজ ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হত আমার লেখা। তারপর ব্যস্ত কর্মজীবনে সেভাবে সাহিত্যচর্চা করা হয়নি, লেখার এলোমেলো ভাবনা গুলো হয়ত আমাকে ছেড়ে যায়নি কিন্তু লিপিবদ্ধ করার তাগিদ অনুভব করিনি তেমন। শুধু ইচ্ছে বা সময় নয় শ্রোতার অভাবও হয়ত এর জন্য দায়ী ছিল। নতুন করে আবার শুরু করার ভাবনা আসে লকডাউনের অবসরে। লিখতে শুরু করি, পাঠক বলতে দুই একজন বন্ধু। লেখা কোথাও প্রকাশ করার কথা ভাবিনি কখনো। কারণ,লেখালেখির জগতে আমার কোনো পরিচিতি নেই। এমন সময় ফেসবুক গ্রুপ "খোঁজ" থেকে সন্ধান পেলাম "শব্দদ্বীপ" ওয়েব ম্যাগাজিনের। লেখা মেইল করলাম এবং নির্বাচিত হলো। নিজ সৃষ্টিসুখের স্বীকৃতির এই মুহূর্ত সত্যিই খুব আনন্দের। এই স্বীকৃতি উৎসাহ আর অনুপ্রেরণার। এই স্বীকৃতি মনে করিয়ে দেয় আজও আমার লেখা প্রাসঙ্গিক কিনা। 

লেখকের নাম, যশ, পরিচিতি নয় তার লেখনীই হোক তার পরিচয়। নতুন লেখকদের সৃজনশীল সৃষ্টিকর্মে, আলোকিত শব্দের সম্ভারে এমনভাবেই ভরে উঠুক "শব্দদ্বীপ"। আরো শ্রীবৃদ্ধি হোক শব্দদ্বীপে" র নতুন বছরে এই কামনা করি। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন আর সাহিত্যে থাকুন।

লিখেছেন - আসিফ মন্ডল - ৯ই জানুয়ারি, ২০২২


অসংখ্য ধন্যবাদ আমার লেখা কবিতাগুচ্ছকে ঠাঁই দেওয়ার জন্য। গত কয়েক মাসে শব্দদ্বীপের বাসিন্দারা আমার বড় আপনজন হয়ে উঠেছেন। ব্যস্ত জীবনের কর্ম-ক্লান্তির মাঝে যেটুকু ....যৎসামান্য  অলস সময় চুরি করি সেসময়ে কেউ যেন মনকে বলে কিছু সৃষ্টি করো শব্দদ্বীপের জন্য, এলোমেলো হাওয়াতে হারিয়ে যেতে দিও না এই সব ভাবনার বীজ, হোক দুই চার লাইন তবু ভাবনারা কিছু শব্দ পাক।

আমার ভীরু ভাবনা, ভাষা বা ছন্দ জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা, সবকিছু খামতি সত্ত্বেও শব্দদ্বীপের এই আশ্রয় বা প্রশ্রয় আমাকে জুগিয়েছে সাহস, দিয়েছে অনুপ্রেরণা। আমার মতন আরো অনেককেই দিয়েছে একটা আলোকিত মঞ্চ। এভাবেই শব্দদ্বীপ বেড়ে উঠুক, ফুলে ফলে পল্লবিত হোক। মূল ধারার শৌখিন দামী বাবুদের ফুলবাগানের থেকে দূরে এমন ভিন্ন ধরনের শত ফুল প্রস্ফুটিত হোক। অপসংস্কৃতির বেনোজলের বিরুদ্ধে আসুন সুস্থ সংস্কৃতি চেতনার মানুষজন আরো একটু বেঁধে বেঁধে থাকি।

         সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা, ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন আর সাহিত্যে থাকুন।

লিখেছেন - আসিফ মন্ডল - ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২২


শব্দদ্বীপ একটি মননশীল সাহিত্য চর্চার আসর। যেখানে রুচি সম্মত লেখা দিয়ে সামাজিক দায়বদ্ধতা খানিকটা মিটিয়ে ফেলা যায়। আমার চিন্তা ধরা পড়েছে এই ম্যাগাজিনের কমিটিতে যাঁরা আছেন তাঁরা যথেষ্ঠ বলিষ্ঠ সাহিত্যিকের আসন উলঙ্কৃত করে আছেন। তা না হলে রুচিশীল পাঠকের কথা মাথায় রেখে বর্তমান সমাজচিত্রের দিকে লক্ষ্য রেখে ঝাড়াই বাছাই করে সুন্দর কবিতাগুলি পাঠক সমাজে আয়নার মতো তুলে ধরতে পারতো না।

লিখেছেন - কল্যাণ সুন্দর হালদার - ৭ই জুন, ২০২২


আপনাদের শুভ প্রচেষ্টায় শব্দদ্বীপ ওয়েব ম্যাগাজিন এগিয়ে চলেছে। আমাদের লেখাগুলি ওয়েব ম্যাগাজিনের পাতায় তুলে ধরছেন, অনেককে পড়ার সুযোগ করে দিচ্ছেন। এজন্য ধন্যবাদ জানাই। আমার বেশ কয়েকটি লেখা গুগলের সার্ভারে স্থান পেয়েছে আপনাদের শব্দদ্বীপ পরিবারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায়। আমি কৃতজ্ঞ। শুধুমাত্র ধন্যবাদ জানানোই যথেষ্ট নয় । শব্দদ্বীপ পরিবারের সদস্যগণ নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন তাই এই শুভ উদ্যোগ এগিয়ে চলেছে, এতে আমার মত আরও অনেক সাধারণ লেখকও নিজেকে বিকশিত করার সুযোগ পাচ্ছেন, আমি এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। শব্দদ্বীপ এভাবেই এগিয়ে চলুক, যাতে আমরাও নিজেদের বিকশিত করার সুযোগ পাই। গুগলে সার্চ করলে আমার লেখা পড়া যাচ্ছে, এটাই খুব বড় ব্যাপার। অনেক শুভেচ্ছা শুভকামনা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। শব্দদ্বীপ পরিবারের সকল সদস্য সুস্থ থাকুন প্রার্থনা জানাই।

লিখেছেন - জয়ন্ত কুমার সরকার - ১৯শে জুলাই, ২০২২


আমার তরফ থেকেও শব্দদ্বীপকে অনেক ভালোবাসা জানাই। প্রথমে বলি, শব্দদ্বীপ একটি আন্তর্জাতিক সাহিত্য চর্চার মাধ্যম। এখানে লিখতে এসে আমার ভীষণ ভালো লাগছে। মন খুলে লিখতে পারি। বাংলা সাহিত্যকে ভালোবেসে এগিয়ে চলার একটি সুন্দর পথ "শব্দদ্বীপ "। বহু পাঠক পাঠিকা শব্দদ্বীপের লেখা পাঠ করার সুযোগ পেয়েছে, যেহেতু এটি আন্তর্জাতিক ওয়েব ম্যাগাজিন। 
দ্বিতীয়ত, আমার ভালোলাগার একটি জায়গা।গৃহাভ্যন্তর থেকে লেখা পড়ার ও পাঠানোর সুযোগ পেয়েছি।আমি যতদিন "শব্দদ্বীপ"এর সাথে থাকতে পারব আমার ভীষণ ভালো লাগবে।

অনেক ভালোবাসা রইল। এগিয়ে চলুক এই সাহিত্য মাধ্যম। সকল পাঠক সাহিত্য রস আস্বাদন করুক। লেখক, পাঠক ও সম্পাদক এর প্রতি রইল অনেক ভালোবাসা।

লিখেছেন - বন্দনা পাত্র - ২১শে জুলাই, ২০২২