Best Online Bangla Galpo App 2023

Sharing Is Caring:

নতুন মাস্টার – কৃষ্ণকিশোর মিদ্যা [Online Bangla Galpo App]

অনেক কাঠ খড় পুড়েছে। জীবন থেকে ভেসে গেছে চোদ্দটি বসন্ত। হতাশার ধারালো কিনারায় এসে একটা অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার, দীর্ঘকালীন নিষ্প্রদীপ এর মধ্যে আলোর ঝিলিক। বাবার উৎকণ্ঠা, মায়ের মানসিক যন্ত্রণা লাঘব করে পোস্ট অফিসের পিয়ন ব্রাউন কালারের খামটি ধরালেন সেই বাবার হাতে। ভিতরের যন্ত্রণাটা রক্তপাত ঘটাচ্ছে অনেকদিন। ছেলেটার মুখের দিকে চেয়ে দেখতে পারছিল না বাবা। এক যান্ত্রিক জীবন নিয়ে হাঁটা বসা বলে মনে হত। আজ অনেকটা হালকা হল সুরঞ্জন।

বাড়ি থেকে তুলনামূলক কম দূরত্বে ছেলের প্রাইমারি স্কুল। মাসখানেক হল সে যোগ দিয়েছে ওই স্কুলে। বঙ্গীয় শিক্ষা অঙ্গনের এক করুণ ও হতাশাব্যঞ্জক সময়ে তার এই যোগ দেওয়া, কতটা কঠিন সে কথা ভুক্তভোগী ছাড়া কেউ বুঝবে না। আজকের সময়ে এই না বোঝার অভ্যেসটা মানুষের সহজাত হয়ে গেছে। আপনার বিপদ আপনার, আপনার যন্ত্রণা সেও নিজের, ভাগীদার তো কেউ নয়। বাবা ছেলের গল্প হয়, তার স্কুল, পড়ানো, সহশিক্ষক, প্রধানশিক্ষক ইত্যাদি বিষয়ে । অনেক কথা বলে আবার অনেক ঢেকে রাখে, বাবার টেনশনের কথা মাথায় রেখে। সেদিন দ্বিতীয় শ্রেণির একটা ক্লাস নিতে গেছে নতুন মাস্টার। সবাই এখন এই মাস্টারের সঙ্গে পরিচিত হয়নি। মাষ্টারমশাই জড়তা কাটানোর জন্য সকলের নাম, ধাম, জানতে চায়, জানতে চায় এখন কোন পর্যন্ত তাদের পড়া এগিয়েছে ইত্যাদি। ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে এক বালিকার দিকে মাস্টারের দৃষ্টি যায়। সবাই কথা বললেও সে কিন্তু চুপ চাপ। পাশের মেয়েটির সঙ্গেও প্রায় কথা নেই। চোখে মুখে এক অস্বাভাবিক চিহ্ন। ব্যাপারটা কী প্রথম দিন মাস্টার বুঝতেই পারলো না। মনে মনে ভাবে, শিক্ষক হয়ে ছাত্রকে না বুঝতে পারলে সে তো মাস্টারের দিক থেকে ঘাটতি।

রোজ কিন্তু ওই বালিকাটি স্কুলে আসে, সারাক্ষণ বেঞ্চিতে বসে থাকে, মিড ডে মিলের ভাত খায় অন্যদের সঙ্গে। তবে পড়াশুনোতে এক বিন্দু মন নেই যে। মন যেন তার উড়ু উড়ু। বুঝতে পারে মাস্টার মশাই। সেদিন ছুটি হওয়ার আগে ওই মনমরা ছাত্রীর পিছনের বেঞ্চের বেনী বাঁধা ছোট্ট ছাত্রীকে মাস্টার কাছে ডাকে। তার কাছে জানতে চায় তার বন্ধু ওই বালিকার কথা। মাস্টার তার কথা শুনে অবাক! কী সুন্দর মিষ্টি গলায় এবং বালিকা সুলভ অভিব্যক্তি মিশিয়ে সে শোনাল। – ‘ও খুব কষ্টে আছে ছার ! ওর বাবা নেই মা নেই, ভাই নেই।’ – ‘তারা কি মরে গেছে!’ মাস্টার জিজ্ঞেস করে। ‘ – বেণী দুলিয়ে সে বলে – ‘না না ছার, তারা কোথায় নাকি চলে গেছে, ওকে মামার ঘরে রেখে। ওর মামী নাকি খুব বকে, কাজ করায়।’

স্কুল ছুটির পর মাস্টার একা হয়ে যায়। ভাবে, বেণী দোলানো মেয়েটা কী সত্যি জানে ! ওর মা বাবা চলে গেছে! ওইটুকু মেয়েকে না নিয়ে কোথায় গেল ! গাড়ি ধরার জন্য মূল রাস্তায় যাওয়ার সময় মাস্টার দেখে, ক্লাস ফোরের এক ছাত্রীর সঙ্গে সেই বালিকা হেঁটে হেঁটে যাচ্ছে। তাহলে কী , ওদের বাড়ির কাছে থাকে সে ! পরের দিন স্কুলে ক্লাস ফোরের ক্লাস ছিল । সেই ক্লাসে গিয়ে জিজ্ঞেস করে দেখলে হয় একবার। ক্লাস নেওয়া শেষ হলে, মাস্টার গতকালের দেখা ছাত্রীটিকে ডেকে নেয় তার টেবিলের কাছে। ঠিকই আন্দাজ করেছে নতুন মাস্টার। তোমাদের বাড়ির কাছে কী ওই রেখার বাড়ি ? – না না , ওর মামার বাড়ি আমাদের পাড়ায়। রেখার মামা আমার সঙ্গে স্কুলে পাঠিয়ে দেয়। আমি নিয়ে আসি আর নিয়ে যাই রোজ। ও খুব কম কথা বলে স্যার। সব সময় কী যেন ভাবে। আমাদের গ্রামের সব লোক জানে, ওর বাবা নাকি নতুন বিয়ে করে চলে গেছে কোথায়। তার কিছুদিন পরে ওর মা নাকি আবার বিয়ে করে চলে গেছে। যাবার সময় ওকে নাকি বলে গেছে, – তুই জামা প্যান্ট গুছিয়ে রাখিস , যে কোন দিন তোকে নিয়ে যাবো একটা ভালো বাড়িতে। সেই জন্য ও সব সময় ভাবে ওর মা আসবে যে কোন দিন। ওর ব্যাগে দেখবেন বই খাতা কিছুই নেই। আছে কয়েকটা জামা , প্যান্ট, লিপস্টিক, ইত্যাদি। দুপুরে ওর মামা মামী কাজে যায়, তাই স্কুলে রোজ আসে ভাত খাওয়ার জন্য।’ – ‘ছুটির দিনে কী করে, কোথায় খায়!’ – মাস্টার বলে। সে কথার উত্তর ছাত্রীটি জানে না।

আনমনা হয়ে যায় নতুন মাষ্টারমশাই। হয়তো খেতে পায়, নয়তো পায়না। পরের সপ্তাহে দ্বিতীয় শ্রেণির ক্লাস নিতে গিয়ে আবার সেই ছাত্রীটিকে নিবিড়ভাবে দেখে, আহা রে অভাগী বালিকা! মা বাবার সান্নিধ্যহীন জীবন, কত কষ্টের! এই রেখা, তুমি বই পড়ছো না , লিখছো না কেন , সবাই তো দেখ পড়ে লেখে। বলতে বলতে মাস্টার তার বেঞ্চের কাছে গিয়ে ব্যাগ খোলে। অন্যরা সবাই দেখে মাস্টারের কাণ্ড। তারা তো সবাই জানে, ওর ব্যাগে বই খাতা কিছুই নেই। নতুন মাস্টারও তাই দেখলো। যা আগের দিন শুনেছে। ক্লাস ফোরের ছাত্রীটি তো ঠিকই বলেছে। মাস্টার বলে, – কী তোমার বই খাতা নেই, স্কুল থেকে দিয়ে দেব । কাল থেকে লিখতে পড়তে হবে। সবাই চেঁচিয়ে বলে, – ও লেখে না পড়ে না ছার। শুধু দুপুরে খেতে আসে।

ক্লাস শেষ করে প্রধান শিক্ষকের ঘরে গিয়ে ঘটনাটা বললে, তিনি মাথা দুলিয়ে বলে, – ‘জানি জানি সবটাই জানি। শুধু আমি কেন সব মাস্টার মশাই জানে ওই মনমরা ছাত্রীটির কথা। কিন্তু কী করি বলুনতো! পড়তে বললে পড়ে না, লিখতে বললেও না। সবাই চেষ্টা করেছে, পারেনি।’ সরকারি Child line এ খবর দিয়ে ওকে একটা অনাথ আশ্রমে ভর্তি করানো যেতে পারে। নতুন মাস্টার প্রস্তাব দেয়। ‘আপনি ভাবছেন, আমি চেষ্টা করিনি। পাড়ার নেতারা তা করতে দিল কোথায়!’ নতুন মাস্টার কিছুই বুঝতে পারে না। আসলে ওই নেতার ছেলের সঙ্গে রেখার মা পালিয়ে গিয়ে অন্য সংসার পেতেছে, সেই ঘটনার প্রতিক্রিয়া জাত ক্ষোভ। প্রধান শিক্ষক খোলসা করে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ বিবরণ শোনালেন। ‘কিন্তু ওই বালিকার দোষ কোথায়!’ – নতুন মাস্টারের কথার জবাব না দিয়ে তিনি বললেন।’ আপনাকে এই বিষয় নিয়ে বেশি ভাবতে বারণ করছি, অনেক বিষয় এর সঙ্গে জড়িত, আপনি বুঝবেন না।’

নতুন মাস্টার শুনলেন, অন্য সব শিক্ষক এই সব ঘটনা জানেন আর ছাত্রছাত্রীরাও। অবাক হয়ে যায় সে। মায়ের স্নেহ, বাপের আদর বলে কী কিছুই রইলো না এই পরিবর্তিত আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর সমাজে। প্রবৃত্তির কাছে এ কী ধরণের আত্ম সমর্পণ! আর একটা ফুলের মত নিষ্পাপ শিশু বসে আছে প্রবৃত্তি তাড়িত মা অথবা বাবার জন্য ! আবার মা বাবার স্নেহ ছায়া বঞ্চিত শিশু একটা আশ্রয় পাবে, সে ব্যবস্থার প্রতি প্রতিহিংসা! নতুন মাস্টারের মাথা ঝিম ঝিম করে। তার সহ শিক্ষকের দল প্রধান শিক্ষকের মত ভঙ্গিতে পরামর্শ দেয়, এই ব্যাপারে না ভাবতে। নতুন মাস্টার আসে যায়, ক্লাস নেয়, কিন্তু ওই বালিকার দিকে মন অথবা চোখ গেলে অস্থির হয়ে যায়। অবোধ এক বালিকা এই বয়সে মানসিক রোগী হয়ে গেল! সমাজের কেউ কিছু ভাববে না ! একটা শিশু মন সর্বদা ভাবছে, আসবে, ফিরে আসবে তার মা, নয়তো তার বাবা। আবার সে ফিরে পাবে মায়ের কোল, বাপের নিশ্চিত আশ্রয়। এভাবেই হয়তো একদিন সে হারিয়ে যাবে এই সমাজের অন্ধকার গলিতে। কেউ তার খুঁজে পাবে না আর।

ছুটির পর নতুন মাস্টার আর দেরি করে না, বেরিয়ে যায় একলাটি । বুঝতে দেয় না যে সে মাঝে মাঝে বি ডি ও অফিসে যায়। বিডিও সাহেব তো সন্ধ্যে উজিয়ে অফিস করেন। একদিন সাহস করে তাঁর চেম্বারে ঢুকে নিজের পরিচয় দিল , সেখানে তখন কেউ নেই। ….. মন দিয়ে তিনি সব শুনলেন। এবং ঘটনাটা যে অল্প একটু জানেন, সে কথা স্বীকার করলেন। তবে নতুন মাস্টারের যুক্তি তিনি ফেলতে পারলেন না। তিন মাস পর হঠাৎ নতুন মাস্টারের ট্রান্সফার অর্ডার হয়ে গেল। সবাই তো অবাক । তবে বদলি হল অন্য জেলায়। কেউ কিন্তু কোন কারণ জানতে পারলো না এই বদলির। তবে নতুন মাস্টার জানতো।

তার ঠিক একমাস পরে নতুন মাস্টারের আগের স্কুলে একটা গাড়ি ঢুকলো। দুজন অফিসার ও দুজন পুলিশ কনস্টেবল হেড মাষ্টারের ঘরে গিয়ে সেই ছাত্রী রেখার খবর নিল, সে স্কুলে এসেছে কী না। তারপর রেখাকে নতুন জামা প্যান্ট পরিয়ে সব কাগজ পত্র হেডমাস্টারকে দেখিয়ে ও কপি দিয়ে রেখাকে নিয়ে তারা এক হোমে নিয়ে চলে গেল। সবাই অবাক হয়ে শুধু চেয়ে রইলো অনেকক্ষণ। কিছুক্ষণের মধ্যে রেখার মামার বাড়ির গ্রামে খবর চলে গেলে মামা মামী হাঁপ ছেড়ে যেন বাঁচলো। টেলিফোন সংযোগে নতুন মাস্টার বিডিও সাহেবকে ধন্যবাদ জানাল, কারণ তিনিই এই কর্মকাণ্ডের নীরব কারিগর। ঘটনাক্রমে রেখার হোমটি ছিল নতুন মাস্টারের স্কুলের থেকে মাইল দশেক দূরে। একদিন স্কুলে ছুটি নিয়ে নতুন মাস্টার ওই হোমে গেল। খোঁজ নিয়ে ও নিয়ম মেনে রেখার সঙ্গে সাক্ষাৎ হল তার। মন মরা মেয়েটার এ কী পরিবর্তন ! ওকে দেখে মাস্টার হতবাক। সে ছুটে এসে মাস্টারের পায়ে প্রণাম করতেই তাকে কোলে টেনে নিলেন সুপ্রতিম মাস্টার। …. ঘন্টাখানেক সময় কাটিয়ে ফেরার সময় মাস্টার দেখলেন রেখার চোখ দুটো ছল ছল।

কৃষ্ণকিশোর মিদ্যা | Krishna Kishore Middya

Sunglass and our friendship | সানগ্লাসেই সৃষ্টি আমাদের বন্ধুত্ব | Bangla Galpo 2023

Bibarna 2023 | New Bengali Story | বিবর্ণ | শওকত নূর

Appearance of Jagannath and Patitapawan Srivigraha | 2023

Sir Isaac Newton Article 2023 | স্যার আইজ‍্যাক নিউটন

Online Bangla Galpo App 2023 | Top Bangla Golpo Online Reading | New Read Online Bengali Story | Top Best Story Blogs | Best Story Blogs in pdf | Sabuj Basinda | High Challenger | Famous Bangla Golpo Online Reading | Shabdodweep Read Online Bengali Story | Shabdodweep Writer | Bangla Golpo Online Reading pdf | Famous Online Bangla Galpo App | Pdf Online Bangla Galpo App | Natun Online Bangla Galpo App | Full Bangla Golpo Online Reading | Bangla Golpo Online Reading Blogs | Best Story Blogs in Bengali | Live Bengali Story in English |Bangla Golpo Online Reading Ebook | Full Bangla Galpo online | New Online Bangla Galpo App | New Bengali Web Story – Episode | Golpo Dot Com Series | Online Bangla Galpo App Video | Horror Online Bangla Galpo App | New Bengali Web Story Audio | New Bengali Web Story Video | Online Bangla Galpo App Netflix | Audio Bangla Golpo Online Reading | Video Bangla Golpo Online Reading | Shabdodweep Competition | Story Writing Competition | Bengali Writer | Bengali Writer 2023 | Trending Bangla Golpo Online Reading | Recent Online Bangla Galpo App | Top Online Bangla Galpo App | Popular New Bengali Web Story | Best Read Online Bengali Story | Read Online Bengali Story 2023 | Shabdodweep Bangla Golpo Online Reading | New Bengali Famous Story | Bengali Famous Story in pdf | Online Bangla Galpo App Download | Bangla Golpo Online Reading mp3 | Horror Adult Story | Read Online Bengali Story Collection | Online Bangla Galpo App mp4 | Online Bangla Galpo App Library | New Bengali Web Story Download | Full Live Bengali Story | Bengali Famous Story 2023 | Shabdodweep Bengali Famous Story | New Bengali Famous Story | Bengali Famous Story in pdf | Live Bengali Story – audio | Bengali Famous Story – video | Bengali Famous Story mp3 | Full Bengali Famous Story | Bengali Literature | Shabdodweep Magazine | Shabdodweep Web Magazine | Live Bengali Story Writer | Shabdodweep Writer | Collection Online Bangla Galpo App

Leave a Comment