On the hilly roads of Uttarakhand | Best Travel Story

Sharing Is Caring:

উত্তরাখণ্ডের নৈসর্গিক পাহাড়ি পথে – শিবপ্রসাদ পুরকায়স্থ

খণ্ড ১

[খাসির মাংস এবং জাগ্রত বিচুটি]

ভ্রমণ স্থলে পৌঁছানোর আগের কিছুটা সময়, শূন্য সময় ধরে নিতে পারি। অভিযানের শুরুতে বিচিত্র সব ঘটনা ঘটে, অনেকে ধর্তব্যের মধ্যে আনি না। আবার যেখানে বেড়াতে চলেছি, অনেককিছু দর্শনীয় বস্তু বা স্থানের মধ্যে একটাকেই নামে বা ক্ষেত্রের প্রাধান্য দিয়ে থাকি। যেমন, হাজারদুয়ারি, পুরীর মন্দির, সুন্দরবন। অথচ সেখানে হাজারো দেখার জিনিস থাকে। যদি সুন্দরবন একমাত্র দেখাই উদ্দেশ্য হয়। বাঘ, কুমির, হরিণ দেখার জন্য উৎসুক হই কেন? না দেখতে পেলে মন খারাপের গল্প করি কীসের দুঃখে। অরণ্য কেন্দ্রিক সামগ্রিক উপভোগ করাই হলো সুন্দরবন ভ্রমণের বিশেষত্ব।

আমাদের আজকের ভ্রমণের যে নামটি মুখে মুখে ঘুরছে ফিরছে এবং এখনো একই ভাবে অনড় আছি, তা হলো কৌশানী। আমাদের ভ্রমণের শেষ রাত্রিবাসের জায়গা। মজার হলো, ওই নামের ফুটফুটে দুরন্ত ছোট্ট মেয়েটি আমাদের ভ্রমণসঙ্গী। তার নামটাও কৌশানী। আমাদের কৌতূহলের বিষয় এটাই, নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা পাহাড়ি স্থানটি কতটা সুন্দর, আমাদের ছোট্ট মেয়ে কৌশানীর থেকেও। নিছক কৌতুক করে বললাম। পাঠক বন্ধুরা আমাকে প্রশংসা করে বলতেই পারে, একদম পাকা ঘোল ব্যবসায়ী। তাহলে মারাত্মক ভাবে ভুল করবেন। মেয়েটির চোখে দেখলে, রূপে মুগ্ধ হবেন। ওর সঙ্গে আমার কোথায় মিল সেটাই বরং বলে রাখি জেনে রাখুন। তাহলে ওদের সঙ্গে আমাকে আলাদা ভাবে চিনতে সুবিধা হবে।

কৌশানীকে নিয়ে উত্তরাখণ্ডের ভ্রমণ সূচিতে মোট পনের জন। রাত নটা-পঁয়তাল্লিশে হাওড়া থেকে বাগ-এক্সপ্রেস ছাড়ল। রায়বেরেলি পৌঁছাল সকাল দশটায়। যেখান থেক ভারতের একসময়ের কয়েকবারে জয়ী প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গন্ধী দাঁড়াতেন। ওখান থেকে গন্তব্যের শেষ ষ্টেশন কাঠ-গুদাম। সবাই লাগেজপত্র নিয়ে নেমে পড়লাম। এইযে দুই রাত্রি, একদিন ট্রেনের মধ্যে কাটিয়ে চতুর্থ দিবসের প্রায় মধ্যভাগে এখন। এই দীর্ঘসময়ে কৌশানী ও আমি রেলকোম্পানির খাতায় দু’জনের নাম নেই। অথচ আমরা সশরীরে বিরাজ করেছি। শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ডিব্বাতে।

তিন জায়গায় আমাদের সিট পড়ে। কৌশানী তিন জায়গায় ছোট্ট পায়ে দাপিয়ে ফেরে। আমি আপার ও লোয়ারের মধ্যে ওঠা নামার সময় পেরিয়ে যায়। একমাত্র আমরা দু’জন টিটি’র ধরা-ছোঁয়ার মধ্যে পড়লাম না কেন সেটাই আশ্চর্যের বিষয় হতে পারে। ছোট্ট কৌশানীর বয়সের ছাড় আছে কিন্তু আমার বেলায় তা তো খাটে না। ফুটফুটে সুন্দর মুখের মামা বলে। ওর মা তো আমাকে সেই ছোট থেকে শিবেনদা বলে সেই অর্থে মামাই। তাই বলে ষাটোর্ধকে রেল কোম্পানি ভাড়া মুকুপ করবে কোন সুখে। আমি বিনা টিকিটের যাত্রী নই, সেই রহস্য প্রসঙ্গক্রমে জানতে পারবেন। আমাদের ভ্রমণ গোষ্ঠীর মধ্যে প্রাক্তন শিক্ষকের ছড়াছড়ি। আছে সরকারি ডাক্তার, সরকারি চাকুরে, রামকৃষ্ণ মিশনের নবীন মহারাজ, কাজলদি। একমাত্র আমি অতি সাধারণ, এগারো দিনের সফরসঙ্গী।

অললাইনে ট্যাভেরা ও ইনোভা দুটো গাড়ি কদিনের জন্য ভাড়া করে রেখেছিল। গাড়ি ষ্ট্যাণ্ডে ছিলো। ফোনের মাধ্যমে উভয়ের সাক্ষাৎ হয়ে গেল। আমরা দুটি দলে ওখান থেকে ভাগ হয়ে গেলাম। এই ভ্রমণের যিনি পূর্ণ পরিচালক পিযুষবাবু। আমাকে শিবুদা বলে ডাকে। আমিও মেজবাবু বলি। বেশ লম্বা চওড়া। গায়ের রঙ উজ্জ্বল। শারীরিক অসুস্থতার জন্য ঘন ঘন ওষুধ খায়। পা টেনে টেনে হাঁটে। এমনটা আগে ছিলো না। ,

সর্বাঙ্গ সুন্দর বলতে গেলে। এখনোও দেখতে সুন্দর তবে অতিরিক্ত মেদ শরীরে বাসা বেঁধেছে। শরীর আর নিজের বশে নেই। ওনার কি দোষ, এই সময়ের ব্যাধির প্রভাব যা সর্বত্র লক্ষ্যনীয়। অপ্রাসঙ্গিক কথার ফাঁকে সবাই গাড়িতে উঠে গেছি। গাড়ি চলতে শুরু করেছে। আমাদের গাইড ম্যানের নির্দেশ যে যেই গাড়িতে উঠেছে, ভ্রমণের কটাদিন গাড়ির সে সেই সিটে, সেই গাড়িতে বসবে। একদিক দিয়ে ভালোই হলো আমার মানসিকতা অনুযায়ী।

ষ্টেশনের বাঁক ছাড়িয়ে বের হতেই, চোখে পড়ল পাহাড়। পাহাড়ের গায়ে পাথর কাটা পথ বেয়ে আমাদের পথ চলা শুরু হলো। দৃষ্টি আর গাড়ির ভেতরে আবদ্ধ রইল না। কান কানপেতে পড়ে রইল গাড়ির কোণে, কুঁনো ব্যাঙের মতো। তবে গাড়ি থামলে দুটো গাড়ির মধ্যে কানে হেঁটে খবরাখবর ঘুরে বেড়াতে লাগল। পিযুষবাবু চালকের পাশে। ওখান থেকে জানিয়ে দিলো, ‘আমার হিসাবের মধ্যে খাসির মাংস খাওয়াবো। পরে যে যার খরচে খেতে হবে, খাওয়াটা একসঙ্গেই হবে’।

সামনের এক পাহাড়ের ঢালে দীর্ঘদিনের পুরোনো পদ্ধতিতে খাসির মাংস রান্না হয়। যতটুকু তেল মশলা না দিলে নয়, ঠিক ততটুকুই দেওয়া। প্রতিদিন একটা আস্ত খাসি আনে। ওখানেই কেটে রান্না করে। আবার ওখান থেকে রাতে বাড়িতে চলে যায়। এইভাবে দীর্ঘদিন চলে আসছে। নামেই হোটেল রাত্রিবাসের যায়গা নেই। গাড়ি সেখানেই এসে পথের পাশে দাঁড় করালো। হিন্দি বাংলায় মিশিয়ে শারীরিক ভাষায় বুঝিয়ে দিলো, ‘চৌদ্দা থালি চাওল আউর হাফ প্লেট করকে মাটন জলদি বানা দিজিয়ে’। ‘ঠিক হ্যায়’ বলে তারা তাদের কাজ শুরু করে দিলো।

ট্রেনের মধ্যে কদিন আটকে থেকে দম প্রায় বন্ধের জোগাড় হয়েছিল। হাতে পায়ে খিল ধরে যাওয়ার অবস্থায় ছিলাম। পাহাড়ের ঢালে মুক্ত প্রকৃতির কোলে যে কি আরাম। কী ভালোই না লাগছে। এখন মোবাইল মানে ক্যামেরা। সেও সক্রিয় হয়ে উঠেছে। যেখানে মাংস ক্রমাগত কাঠের জ্বালে ফুটছে। তার পাশে একটা বড়ো পাথরের চাঁই। তার ওপারে রক্তের ছোপ। যে খাসির মাংস রান্না চলছে, এখানেই কাটা হয়েছে। গভীর খাদের পাশে বেড়ে ওঠা পাইনের ঝাঁঙড়া মাথা আমাদের উঁকি মেরে দেখছে। যেন অনায়াসে তাকে হাত দিয়ে ছোঁয়া যায়। বাস্তবে অসম্ভব ব্যাপার।

এই রাজ্যেই অসংখ্য পাইন গাছের সমাহার। আমরা যেখানে দাঁড়িয়ে আছি। সেখান থেকে বেশ কয়েকতলা নিচে গাছের গোড়া। জানলাম উত্তরাখণ্ড জুড়ে পাইন গাছের আধিক্য। এই গাছের কাঠে ট্রেন লাইনের স্লিপার করা হতো। এখন তো ঢালাইয়ের স্লিপার। এখান থেকে তখন সারা ভারতে লাইন পাতার কাঠ পাঠানো হতো। মাপ মতো গাছগুলো কেটে গুদামজাত করে রাখতো। তাই এই ষ্টেশনের নাম ‘কাঠগুদাম’। আমরা ধাপা থেকে মাংস ভাত খেয়ে, যে যার গাড়িতে উঠলাম। গাড়ি চলতে শুরু করলো।

এগিয়ে চলেছি পাহাড়ি পথ দিয়ে। এই সুযোগে সদস্যের আংশিক পরিচয় দিয়ে রাখি। আমি বসে ছিলাম চালকের বরাবর গাড়ির পেছনের আসনে। আমাদের মাঝের সিট উলটিয়ে ঢুকতে হয়। তা চালক প্রতিবার ওই কাজটি করে থাকে। আমার বাঁ পাশে পিনাকীবাবুর পুত্র বুটু, পোষাকি নাম দীপাঞ্জন। উচ্চমাধ্যমিকে পড়ছে।ওর পাশে পিনাকীবাবুর ছোটদা অর্থাৎ পিযুষবাবু। প্রকৃত তিন ভায়ের মধ্যে ছোট পিনাকী। মেজদাকে ওইভাবে ডেকে অভ্যস্ত। ভাইদের থেকে বড়ো কাজলদি, তিনি সবার কাছে দিদি। অন্য গাড়িতে আছে। জামাইবাবু গোলামচন্দ্র। সবাই তাঁকে মাষ্টারদা বলে ডাকে।নানা বিপ্লবী মাষ্টারদা নয়। আমার সামনের সিটে অর্থাৎ মাঝখানের সিটে তিনজন। কাজলদির ছোটি মাসি দুইদিকে পিনাকীবাবুর শ্বশুর ও শাশুড়ি। এক মাসি ও মাসতুতো বোন অন্য গাড়িতে। সামনের সিটে মহারাজ।

পাঠকবন্ধুরা একটা নামের শব্দ একাধিক বার ব্যবহার করেছি ইচ্ছে করেই, পিনাকী। শ্বশুর, শাশুড়ি ও ছেলে এসেছে কিন্তু স্ত্রীর কথা একবারও ওঠেনি। আসলে পত্নীকে অর্ধাঙ্গিনী বলে, তাঁর অর্ধ অঙ্গ না এলে সতী কী করে আসে। এবার মন খারাপ করে বলি, হঠাৎ অসুস্থতায় অপারেশন করতে হয়। বিশ্রামের জন্য বাড়িতে আছেন স্বামীর সেবার ভার নিজের কাঁধে নিয়ে। আমি, পিনাকী নামে এক সচ্ছল পারিবারিক ভ্রমণমণ্ডলীর অংশ হয়ে বিরাজ করছি। পিনাকী ও শিবেন, দুটোই মহাদেবের নাম এই যা মিল।

নীরবে গোমরা মুখে ভ্রমণ উপভোগ করা যায় না। কান যেমন সজাগ চাই , চোখ খোলা রাখতে হয়। রঙ্গ রসিকতার ছাঁকনিতে অপ্রয়োজনীয় খাদ যা আনন্দময় জীবনের বাধার কারণ, তা ছেঁকে ফেলতে হবে। নির্মল আনন্দ নিয়ে বাড়িতে ফিরতে হয়। তাই আমার দৃষ্টির বাইরের দৃশ্যাবলীতে আর কান পরিপার্শ্বিক ক্ষেত্রে শব্দ সচেতন। নিছক কথোপকথনে রসদ খুঁজে ফেরে। সবাই সরবে মজা করলেও আমি নীরবে বেশি আনন্দ উপভোগ করেছি। বাইরে থেকে সহজে বোঝার কথা নয়।

মাকে হারিয়েছে। ছোটি মাসিকে নিয়ে টুকিটাকি কথায় প্যাচে ফেলে মজা করে মাকে অনুভব করার একটা প্রয়াস পিযুষবাবুর মধ্যে লক্ষ্য করছিলাম। ‘দ্যাখো আবার মেসো ফোন করছে। বাইরে ছাড়া তো উচিত হয়নি। কতটা ভালো বাসে সবাই দেখলে। সঙ্গে আনতে পারতো’। মাসিকে রসিকতা করে বলল।
— পিযুষ তুইতো জানিস, মেসোর শারীরিক অবস্থার কথা। ঘর থেকে ফোঁটা কেটে কেটে পায়খানায় যায়। আমার কম জ্বালায়। কাজের মেয়ে আছে। সব বুঝিয়ে এসেচি। তবু যদি ফোন করে কী করব, শুনতে পাবেনে তবু আঁ আঁ করবে।
— ছেড়ে দাও তো ঝরঝলে মাল। আমার সঙ্গে চলে এসো, যা মালকড়ি আছে নিয়ে।একটা আশ্রয় বানিয়ে দুজনে থাকবো। মহাজের কথায় সবার সে কী হাসির ফোয়ারা গাড়ির মধ্যে।

হাসি ঠাট্টার মধ্যে ছোটি মাসির জীবনের অনেক দুঃখ যন্ত্রণায় কথা জানতে পারলাম। তাঁর উপার্জনের বেশিরভাগ টাকা কাকে না দিয়েছেন। সবাই ভুলে গেছে, তাকে ভুল বুঝেছে। মনে পড়লে ভীষণ কষ্ট পান। তাঁর অকপট স্বীকারোক্তি। ছোটি মাসির থেকে বুঝলাম মানুষ সংসারের চাপ সরিয়ে একবার যদি মুক্ত পৃথিবীর পথে বেরিয়ে পড়তে পারে। জীবনের অনেক কিছু থেকে হালকা হতে পারে। যে প্রিয় মানুষটা আর কোনদিন বাইরে বেরুতে পারবেনা। জীবনসঙ্গিনীকে ভ্রমণে যেতে বাধা দেয়নি। হাসি ঠাট্টা গল্প গুজবের মধ্যে পাহাড়ের গা’ঘেঁষা খাড়াই উৎরাই পথে হাওয়ার গতিতে এগিয়ে চলল আমাদের গাড়ি।

পিযুষবাবু বললেন হোটেলে উঠলে আজকে আর বের হতে পারবনা। যতটা পারি বাইরে ঘুরে নেব। ভ্রমণ সূচিতে ছিলনা। ড্রাইভারের কথায় একটা ঝর্ণা দেখতে চলেছি। সরু পথ দিয়ে বিপদজনক ভাবে এঁকেবেঁকে গাছগাছালির ভিতর দিয়ে প্রায় ঝর্ণার কাছে পৌঁছলাম। পেছনের গাড়ি সেও পাশে দাঁড়িয়ে গেছে। যে গাড়িতে ছিল ডাক্তারবাবু, মৌমিতা ডাক নাম মানতু। দুই মেয়ে, ঈশানী এবং কৌশানী। মাষ্টার, দিদির খুড়ততো বোন মহুয়া, টকাই মাসি ও মাসতুত বোন ঝুম্পা। সবাই এক জায়গায় জড়ো হলাম।

আমরা যে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিলাম তার তলা দিয়ে ক্রমাগত ঠান্ডা জল প্রবাহিত হচ্ছে। এই ঝরনার উৎস ঘন গাছের জন্য দেখতে পাচ্ছি না। সামনে পাথুরে খাঁজ কাটা পথ দিয়ে উঠতে হয়। খাড়াই ধাপ দেখে কে কে উঠবে গুঞ্জন শুরু হয়ে গেল। ছোটিমাসি কোমরে বিশেষ বেল্ট পরা অবস্থায় পা বাড়িয়ে আছে। আমি, ডাক্তার, বড়মেয়ে, বুটু তো যাবোই। দিদির বুকে বিশেষ যন্ত্র বসানো আছে, একদম যাবেই না। মাষ্টার চুপচাপ থেকে সবার ওপরে চালটা দেন। তিনি অনেকটা কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের মতো বললেন ‘যেতে পারি, তবু কেন যাবো’। আমরা টিকিট কেটে ঝর্ণা দেখলাম বটে মন ভরলো না সেভাবে।

নিচে নেমে এক বিরাট শোরুমে একে একে সবাই ঢুকলাম। আমাদের মধ্যে বয়স্কদের বেশিরভাগ হাতে পায়ে গাঁটের ব্যথায় ভুগছে। দোকানিরা এই সময়টা বোঝে। অবাঙালি কথাবার্তায় বুঝিয়ে দিলেন তার হাতে ধরা একগুচ্ছ কাঁটা গাছের গুণাগুণ। শরীরের যেখানে ব্যথা, কয়েক ঘা সেই জায়গায় মারলে মুহূর্তে ব্যথা উধাও। এই গাছ পেস্ট করে চটি বানানো হয়েছে। পরলে পায়ের তলায় ব্যথা থাকবে না। ছোটিমাসি পায়ের সঙ্গে কোমরের অবস্থা ভীষণ খারাপ। ডাক্তারের প্রেসক্রাইব করা বেল্ট প্রায় সময় খোলেন না।যখন শুনলেন বিনামূল্যে পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। ছোটিমাসি বেল্ট খুলে প্রস্তুত।

পায়ের কামিজ হাঁটু পর্যন্ত তুলে ছোট্ট টুলে বসে পড়লেন। লম্বা চওড়া দোকানের ছেলেটি ঝাঁটা পেটার মতো ঝপাঝপ কষিয়ে দিয়ে, এখন কেমন লাগছে জানতে চাইলেন। ছোটিমাসির কোমন তো রাঙা ফোড়ার মতো অবস্থায় ছিলো। গুচ্ছ গাছের ঠিক গুণগত ক্রিয়া আপাতত বোঝা গেলনা বটে। বোধহয় ‘বিষে বিষ ক্ষয়ে’ নির্বিষ বোধ করে বললেন, আগের চেয়ে ভালো বোধ করছি। পাশে বুটুর দিদিমা দাঁড়িয়ে লক্ষ্য করছিল। বিনা পয়সায় এই সুযোগ কে হাত ছাড়া করে। ভদ্রমহিলা বোকামি করলেন না। ব্লাউজের আস্তিন গুটিয়ে ষ্টুলে বসে পড়লেন। ছেলেটি গুচ্ছ কাঁটাগাছের বাড়তি কয়েক ঘা খোলা হাতে মারলেন। হাতে ব্যথা ছিলনা। ফাউ পরিসেবা পেতে গিয়ে এখন মনে হচ্ছে চিড়বিড় করছে। ক্রমশ বাড়বাড়ন্তের দিকে এগোচ্ছে বুঝতে পারছেন। মুখের বিরক্তি ভাব দেখে বুঝতে পারছি।

মধ্যম শালক পিযুষবাবু ওই ঝাঁটিগাছের পেষ্ট করা একজোড়া চটি কিনেছে। মাষ্টার চটি কেনার জন্য ব্যস্ত হয়ে উঠলেন। যখন দেখলেন বুটুর দিদিমা চিড়বিড়ুনিতে অস্থির হয়ে উঠছে। বুদ্ধিমান মানুষ বুঝে নিলেন কোথাও গড়বড় আছে। যে কথা দোকানী বলেছে নিজে শুনেছে। তবুও পিযুষবাবুর কাছে জানতে চাইলেন। ‘হ্যারে এরা তো হোম ডেলিভারি দেয় তাই না। ঠিকানা আছে অর্ডার করিয়ে নেবো’। এই বিষাক্ত চটির কথা আর মুখে এনেছিলেন কি না আমার জানা নেই। ওনার বাড়িতে যাতায়াত আছে চোখে পড়েনি। যাক অনেকটা সময় কাটিয়ে গাড়িতে উঠলাম।

ট্রেন দেরিতে কাঠগোলায় পৌঁছেছে। পথে খেতে আরও অনেকটা সময় পেরিয়ে গেছে। শেষ ঝর্না দেখার উপলক্ষে, দোকানে কিছুটা সময় ব্যয় হলো। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছে।গাড়ি ক্রমশ আরও উপরের দিকে উঠছে। পাহাড়ি পথ ঘুরে ঘুরে এখন নৈনিতালের নয়না লেকের পাশ দিয়ে গাড়ি ধীর গতিতে আমাদের আবাসিকের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। আগামীকাল এখানে বেড়াতে আসব। আমরা কততলা উপর থেকে নয়না লেক দেখছি মাথায় ঢুকছে না। এই লেক অনেকটা ডিম্বাকৃতির। যার আয়তন কত একর হবে, না জানলেও হবে। লেকের গায়ে অসংখ্য ভ্রমণার্থীদের জন্য আবাসিক গড়ে উঠেছে। পুরো লেকের চারিদিকে জোনাকির আলোয় যেন ছিলমিল করছে। লেকের জলতরঙ্গে আলো খেলে বেড়াচ্ছে। নৈসর্গিক অপরূপ সেই দৃশ্য দেখার মতই।

গাড়ি অল্পের জন্য থামিয়ে, আবার চলতে শুরু করল আঁকাবাঁকা পাহাড়ি ঘুর পথে। অনেকটা যাওয়ার পর, বড়ো লোহার গেট পেরিয়ে প্রায় খাড়াই ওঠার মতো উঠে দোতলা বাংলো বাড়ির সামনের খোলা জায়গায় আগু পিছু করে দুটো গাড়ি দাঁড়িয়ে গেল। বোর্ডে লেখা দেখলাম, ইউথ হোষ্টেল নৈনিতাল (Youth Hostel.Nainital) সংরক্ষিত এরিয়া। পাহাড়ের বিশেষ জায়গায় এটি। এখানে বেশিরভাগ ভিআইপি মানুষের বাস। আমরা যেখানে উঠেছি সেই অর্থে হোটেল নয়, হোষ্টেল। যারা ক’দিন নিরিবিলি থাকতে চায় তারাই এখানে আসে।

তলায় মহিলাদের জন্য সুসজ্জিত দুটি এটাচ কক্ষ। ছেলেদের দ্বিতলে বড়ো ঘর (Dormitory)। আমরা ছেলেরা সাতজন। মহারাজের জন্য কোণায় সিঙ্গেল বেড ছাড়া হলো। পিযুষবাবু একা একটা খাট নিলেন। পায়ের গণ্ডগোল আছে,খাটটা নিজের সুবিধা মতো ব্যবহার করতে পারবে। রানিং খাটে আমার কোথাও অসুবিধা নেই। তবে মাস্টারদার কাছাকাছি থাকলে স্বস্তিবোধ করি। ডাক্তারবাবুর দেয়ালের ধারে সবাই উপযুক্ত মনে করলাম। মানুষটা নার্সিংহোম ছেড়ে এসেছেন। মুহূর্তে মুহূর্তে ফোন। কয়েকটা ফোন এবং ল্যাপটপ রয়েছে। ফোনের মধ্যে প্রায় সময় মুখ গুঁজে রয়েছে মনে হলো। জানতে পারলাম না উত্তরাখণ্ডে এসে কী কী দর্শন করলেন। তবে পা ছাড়িয়ে গেলেন নিশ্চিত। অর্ডার দিয়ে রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম। সকাল সকাল বেরিয়ে পড়তে হবে, পিযুষবাবু সবাইকে তেমন জানিয়ে দিয়েছে।

[লাভ-ভিউ থেকে নয়নালেকের সৌন্দর্য]

ট্রেনে দু’রাত, হোষ্টেল একরাত কাটালাম। উনিশে মে দু’হাজার-তেইশের সকাল। চা টিফিন খেয়ে বেরিয়ে পড়া হবে নয়না লেক সহ দর্শনীয় স্থানসমূহ দেখতে। সময় বেঁধে দেওয়া। তাতে কি? গাড়ির কাছে সবাই এলে তো যাত্রা শুরু হবে। এদিকে আমি, বুটু, কৌশানী পথে পায়ে উঁচু নিচু পথে সাপলুডো খেলতে খেলতে সর্বোচ্চ কোর এরিয়ায় পৌঁছে গেছি। আমার মনে হলো ওইতো পাহাড়ের শিখর দেখা যাচ্ছে ওর গোড়ায় যেতে আর কতটুকু সময় নেবে।

বিশাল বিশাল পাইন গাছের ফাঁক দিয়ে যে উচ্চতায় চুড়ো দেখছি। তলদেশ তো ফাঁকা দেখছি না, আবাসনে ভরে আছে। সেইসব ঘরবাড়ির মধ্যবর্তী অলিগলি পথে কৌতূহলী চোখে এগিয়ে চলেছি তো চলেছি। পাহাড়ের গোড়া আর ছুঁতে পারছি না। এমন সময় ফোন বেজে উঠলো। ফিরে যাওয়ার নির্দেশ। ডাক্তারবাবু আমাদের খুঁজে এগিয়ে আসছে। পথের এতটাই ঢাল, ওপর থেকে দেখছি ডাক্তারবাবু যেন তেনজিং নোরগে। পর্বতশিখর জয় করতে উঠছেন। পেছনে সর্বক্ষণের ল্যাপটপের ব্যাগ। সামনে ঝুঁকে লড়াই করে উঠে আসছে। আমরা একই পথে এসেছি তখন বুঝতে পারিনি।

ডাক্তার দীপাঞ্জনের থেকে মেয়েকে কাঁধে নিয়ে আগে আগে চললেন। নামার সময় তুলনামূলক ভাবে কষ্ট কম। এবার আমরা দু’জন পাশাপাশি এগিয়ে চলেছি। আমি রাস্তার বাঁদিক চেপে। বিভিন্ন পাহাড়ি ফুলের গাছ দুদিকে ভরে আছে। আমি গল্প করতে করতে দরদি হাতে ছুঁয়ে চলেছি ফুল গাছের পাতা। হঠাৎ হাত চিড়বিড়িয়ে উঠল। হাত ঝাড়তে লাগলাম। তাতে কী সুরাহা হলো বুঝতে পারলাম না। গাছটাকে ভালো করে লক্ষ্য করলাম।

আরে এতো সেই দোকানের ঝাঁটিগাছ। সম্ভবত বিচুটি, তবে পাতা বেশ চওড়া চকচকে। আমি চিড়বিড়ুনির জ্বালায় দু’কথা শুনিয়ে দিতে ছাড়িনি। আমরা সুন্দরবনের নিচু জলাভূমিতে পাতালে বাস করি। আর তুমি পাহাড়ের শীর্ষদেশে স্বর্গে বসবাস করছ তাতে কি? বনবিলাল হলে কি হবে স্বভাব বদলায় না। তুমি পাহাড়ের গায়ে থাকো আর আমাদের বাঁশবাগানে থাকো, স্বভাব তো বদলালো না। আচ্ছা করে শুনিয়ে, আর পেছনে তাকালাম না।

হোষ্টেলের কাছাকাছি এসে উপরে দিকে তাকালাম। গতকাল সন্ধ্যায় অতটা নজর করিনি। আমরা যে বাংলো টাইপের আবাসনে আছি। তার পাশে ঘন গাছের বন ভেবেছিলাম। সেটাই একটা পাহাড়। পাহাড়ের তলদেশ কেটে সমতলে পরিণত করে এই বাংলো। আমরা লক্ষ্য করলাম পাহাড়ের অনেক উঁচুতে গাড়ি চলছে। নিশ্চিত পথ আছে ওখানে।

পরে জানলাম আমাদের ওই পথে নয়না লেকে যাবো। চা টিফিন খেয়ে গাড়িতে গিয়ে বসলাম। আমাদের দুটো গাড়ি নির্দিষ্ট গতিতে এগিয়ে চলল। নয়না লেকের বরাবর রাস্তা ধরে এগিয়ে চলেছি।প্রথমে ‘লাভভিউ’ দেখার জন্য। খাড়াই পাহাড়ের পাশে অপ্রশস্ত পথ। পথের গা ঘেঁষে নেমে গেছে গভীর মরণ খাদ। খাদের ধারে সুসজ্জিত ফ্রেমের মধ্যে ভালোবাসার প্রতীক। ওই ফাঁকা জায়গায় মুখায়ব অক্ষয় করে রাখতে চায়। বলতে গেলে খাদের ধারে যেভাবে একটু ছোঁয়া পেতে প্রেমিক-প্রেমিকা চঞ্চল হয়ে ওঠে। অসতর্ক মুহূর্তে জীবন্ত প্রেমের সমাধি না ঘটুক চাইব।

আমরা লাভভিউ-তে চা বিস্কুট খেয়ে বেরিয়ে পড়লাম। পথে বেশকিছু দর্শনীয় জায়গায় ঘুরে নিলাম। নয়না লেকের পেছনের দিকে নেমে পড়লাম। গাড়ি নির্দিষ্ট সময়ে সামনের দিকে থাকার কথা বলে অন্যত্রে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য বেরিয়ে গেল। লেকের কাছাকাছি গাড়ি রাখলে খরচ অনেক বেশি। আমরা মূল রাস্তা ছেড়ে, লেকের ভিতরের রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে মন্দিরের দিকে চলে গেলাম। জুতো বাইরে রেখে নয়নাদেবীর মন্দির দেখলাম। দেবীকে প্রণাম করে বেরিয়ে এলাম। যেখানে ভোগ বিতরণ হচ্ছে শালপাতার খুপিতে সংগ্রহ করলাম। মহারাজের উত্তরাখণ্ডে আসার মূল কারণ, এখনকার দেব-দেবী, প্রাচীন মন্দিরগুলো দেখার জন্য আসা। নিজের মতো করে, একা একাই ঘুরে বেড়িয়ে সময় কাটালেন।

একটা সময় সবাই নয়না লেকের বোটিং এর ঘাটে উপস্থিত হলাম। পিড়াপিড়িতে মহারাজ বোটিং বিহার করলেন। আমি না না করে দিদির কথায় বোটিং-এ যেতে রাজি হলাম। পিযুষবাবু ও দিদি, সামনে বসলো। আমি মাঝে। পেছনে ডাঁড়ি দু’হাতে ডাঁড় টেনে মাঝখান দিয়ে এগিয়ে চলেছে। আমি ছবি তুলছি। চারিদিকে অবাক চোখে তাকিয়ে দেখছি। গতকালের সন্ধ্যায় ওপর থেকে সারা নয়না লেকটা মনে হয়েছিল অসংখ্য জোনাকির আলোয় ভরে আছে। এখন লেকের জলের ওপর থেকে মনে হচ্ছে তিন দিকের ঢাল যেল রঙিন টালি দিয়ে বাঁধানো। একদিকের পাহাড়ের ঢালে গাছে ভরে আছে। বোটিং দু’দিক থেকে চলছে, মাঝ বরাবর সীমানা। লম্বায় মেপে দেখিনি যতদূর দেখা যায় ততটা, প্রত্যেকের দেখার চোখের ওপর নির্ভর করছে।

মাঝখানে কল্পিত রেখা ছোঁয়ার আগে, সবকিছু উপভোগ করার আনন্দ উবে গেল। বুকের মধ্যে ধুকপুকুনি শুরু। কার কী হয়েছিল ওই সময়ে বলতে পারবনা। ঠিক নয়নালেকের মাঝখানে যেখানে জল বুদবুদ করে উঠছিল। জল স্বচ্ছ কিন্তু যেদিকে আবাসিক নেই। পাহাড়ের গায় গজিয়ে ওঠা বৃক্ষরাজি। গাছগাছালি বৈকালিক ছায়া জলে পড়েছে। জল বেশ কালো দেখাচ্ছে আর ওই বুদবুদ।যেকেউ ভাবতেই পারে, তিনি মাছের মতো দৈত্যাকার কোনো জলদৈত্য যদি জলের ওপর মাথা তোলে।

মোচার খোলের মতো ছোট্ট বোটের কী অবস্থা হবে কল্পনা করুন। একসময় বোটটি আপাতত নিরাপদ মনে হলো। চালকের কাছে জানতে চাইলাম, ‘বুদবুদ কিসকা হ্যায়’? যা বলল এইরূপ। উঁচু পাহাড়ের ঝর্ণা বাহিত জল। এক পাহাড় থেকে আর এক নিচু পাহাড়ে বয়ে চলে। তেমন একটা ধারার জল পাইপের মাধ্যমে লেকের মাঝখানে ঢুকছে। বাড়তি জল, নয়না লেক থেকে নিচের পাহাড়ে ঝর্না হয়ে কোথাও ঝরে পড়ছে। লেকের জল বরাবরই এক থাকছে। ফলে নয়নালেকের জল দুষিত হচ্ছে না। এভাবে নতুন অনুভূতি বোটিং-এর মজা উপভোগ করলাম।

এবার হোটেলে খেয়ে দুই চালকের কথা মতো বড়ো রাস্তার মোড়ে রেলিং-এর ধারে সবাই গাড়ির অপেক্ষায় আছি। গুঞ্জন শুনে কাছে এসে দেখলাম। বুটুর দিদিমা ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে বাচ্চা মেয়ের মতো। যেমন তেমন হোক এক্স শিক্ষিকা। কান্নার হেতু কি জানতে পারলাম। গাড়িতে যে ব্যাগটি ভুলে ফেলে গেছে, তাতেই তো সব টাকাপয়সা। গাড়িতে নামার পরে মনে পড়ে। ততক্ষণে গাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে গেছে। অন্য কোথাও গ্যারেজ করার জন্য। পিযুষবাবুর আশ্বাসবাণীতে ছিল ব্যাগ কিছুই হবেনা। দীর্ঘক্ষণ হয়ে গেল গাড়ির দেখা নাই রে। ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেল।, ডাক্তারবাবুর গাড়ি এসেছে। আমাদের গাড়ি আসেনি। যে গাড়িতে বুটুর দিদিমা উঠবে।

তেমাথার চলতি পথে গাড়ি দাঁড়াতে, ট্রাফিক পুলিশ তাড়া দিচ্ছে। ডাক্তারবাবু বড়মেয়ের জন্য কী কিনতে গেছে এখনো ফেরেনি। ঈশানী যদিও এলো তো ওর বাবাকে দেখতে পাচ্ছি না। আবার কিছুইতে ফোন ধরছে না। ওই এক আপনার ভালো মানুষ। বুটুর দাদাইকে ওই গাড়িতে একরকম জোর করে তুলে দেওয়া হলো। আমি অন্য গাড়িতে উঠতে রাজি হইনি। প্রথম গাড়ি ছেড়ে চলে গেল। বুটুর দিদিমার একান্ত কাছের মানুষ, ঘোর বিপদের সময় তাকে ছেড়ে অন্য গাড়িতে চলে গেল। এদিকে সেই অভিশপ্ত গাড়িটি এখনো টিকিটিও দেখা মিলছে না। মেজবাবু অর্থাৎ পিযুষবাবু সরল মনে জানিয়ে দিয়েছে। আমাদের কদিনের জন্য বুকিং করা গাড়ি। ও অন্য কোথায়ও বাইরে ভাড়া খাটতে পারবে না। আমাদের যা লাগেজ ওর মধ্যে আছে নিরাপদে থাকবে।

কথায় বলে ‘ঘর শত্রু বিভীষণ’। বুটু দিদিমার সঙ্গে রসিকতা করতে ছাড়ল না। ‘মেজজেঠু, এই দীর্ঘসময়ে বাইরে ভাড়া খাটে তো পার? আমরা তো আর দেখতে পাচ্ছি না। জেঠু ভাইপোর দুষ্টুমি বুঝে তৎক্ষণাৎ বলল, ‘তা পারে, ব্যাগ যখন ড্রাইভারের জিম্মায় রেখে আসেনি। প্যাসেঞ্জার নামিয়ে নিলে, ভাববে ওদের। এই কথা শোনা মাত্র বীভৎসভাবে দুই চোখের জল বাঁধ ভাঙা অবস্থায় বইতে লাগল।

এমন সময় ভিড় ঠেলে গাড়ি চলে এসেছে। ড্রাইভার পাল্লা খুলেতেই যেন রিং-এর মধ্যে গলে ভেতরে পড়লেন। প্রথমে ব্যাগ দু’হাতে থাবা মেরে তুলে নিলেন। পরে ভেতরে হাতড়িয়ে নিশ্চিত হলেন তাঁর সম্পদ সুরক্ষিত আছে। মুখে হাসির রেখা মেঘের আড়ালে স্পষ্ট উজ্জ্বল। ইতিমধ্যে ডাক্তারবাবু পৌঁছে গেছে। ফোন-পে মেরেছে। নেটের বিড়ম্বনায় ক্লিয়ার না হলে আসতে পারছিল না। আর কালবিলম্ব না করে গাড়িতে উঠে পড়লাম। পাহাড়ি পথ ঘুরে বাসায় ফিরলাম। উইথ হোষ্টেলে সেই রাত্রি বেশ মজা হলো। এখানে দু’রাত কাটালাম।

[জিমকরবেট জঙ্গল ও আলমোড়া]

সকালে চা টিফিন খেয়ে গাড়ি চড়লাম। বেশ অনেকটা পথ যাওয়ার পরে ‘হনুমান মন্দির’ চোখে পড়ল। তখনও সম্পূর্ণ হয়নি। যা কারুকার্য দেখলাম দুচোখ ভরে গেল। গর্ভগৃহের ওপর মন্দির। সিঁড়ি ভেঙে ওপরে উঠে ভিতর বাহির ঘুরে ফিরে দেখলাম সবাই। আমরা আবার চলতে শুরু করলাম। এখন পাহাড়ি পথ থেকে সমতলে নেমে এসেছি। গ্রামের মধ্য দিয়ে, ঘন গাছপালা পেরিয়ে চলেছি।

এখন খাঁ খাঁ দুপুর, রমনগরের পথে। উদ্দেশ্য ‘রুদ্রাক্ষ হোটেলে আজ রাত্রিবাস করতে চাই। এখানে চারখানা ঘর ভাড়া করা ছিলো। ঘরগুলিতে আধুনিক চিন্তাভাবনার ছাপ লক্ষণীয়। একটি ঘরে আমি ছাড়া আরো দুজন পিযুষবাবু ও মহারাজ। হোটেল বয়কে দিয়ে ডিম ভাতের ব্যবস্থা করা হলো। ফ্রেস হয়ে নিলো সবাই। খেয়েদেয়ে বিশ্রাম নেওয়ার সময়টুকু নেই। ‘জিমকরবেট জঙ্গল সাফারি’তে বেরিয়ে পড়তে হবে। অললাইনে বুক করতে বলা হয়েছিল হোটেল কর্তৃপক্ষকে। তাঁরা সে দায়িত্ব পালন করেছেন।

হুটখোলা জিপগাড়ি তারাও হর্ন বাজিয়ে তাড়া দিচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে না গেলে, আজকের মতো সাফারি বন্ধ হয়ে যাবে। আবার আজের না দেখলে, আগামীকাল এখানে থাকছি না। সেইভাবে দর্শনীয় সময়সূচি ঠিক করা। দুটো গাড়িতে ভাগ হয়ে উঠে পড়লাম। অলিগলি বেড় দিয়ে প্রধান সড়কে উঠল গাড়ি। গাড়ি তীর বেগে ছুটতে লাগল। সোজা গেট পেরিয়ে অফিসের সামনে গিয়ে দাঁড়ালো।

কাগজপত্র চেকিং-এর ব্যাপার। আমি পিনাকী নামে ছিলাম। নতুন করে পাঁচশ টাকায় আমার নামে অনুমতি পত্র সংগ্রহ করতে হলো। মূলকথা চেকিং-এর নামে বাঁহাতি টাকার লুট চলছে, নতুন করে বলার নেই। আমাদের একটি গাড়ি এগিয়ে গিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আমরাও তার পেছনে গিয়ে দাঁড়ালাম। কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে,বাঁদিকে তাকিয়ে দেখি, প্রকাণ্ড এক হস্তী দাঁড়িয়ে আছে। যেন হাতি অপেক্ষায় আছে, কখন ওর সামনের রাস্তা দিয়ে গাড়ি পেরিয়ে যেতে চাইবে। অমনি ও ঠেলা মেরে উলটিয়ে দেবে।

শিবপ্রসাদ পুরকায়স্থ | Shibaprasad Purakayastha

Jagannath Biography and Literature | Special Article

Lord Jagannath and Chaitanya Mahaprabhu | Best Article

A-Z of Cryptocurrency | Digital Currency | Best Article

A-Z of Cryptocurrency | Digital Currency | Best Article

Anandabazar Bengali Short Story | Bengali Short Story | Pratilipi Horror Stories in Bengali | Lifestyle Web Stories in Bangla | Trending online bangla golpo pdf free download | Short bengali story | Bengali story pdf | pratilipi bengali story | Short Stories for Children | English Stories for Kids | Moral Stories for Kids | story in english | story hindi | story book | story for kids | short story | story for girls | short story in english | short story for kids |

On the hilly roads of Uttarakhand pdf | Bangla golpo pdf | Bangla golpo story | bangla romantic golpo | choto golpo bangla | bengali story | Sunday suspense golpo | sunday suspense mp3 download | suspense story in hindi | suspense story in english 200 words | On the hilly roads of Uttarakhand in english | Trending online bangla golpo pdf download

suspense story in english 300 words | Suspense story examples | suspense story in english 100 words | suspense story writing | very short suspense stories for students | On the hilly roads of Uttarakhand | Top Bangla Golpo Online Reading | New Read Online Bengali Story | Top Best Story Blogs | Best Story Blogs in pdf | Sabuj Basinda | High Challenger | Famous Bangla Golpo Online Reading | Shabdodweep Read Online Bengali Story | Shabdodweep Writer | Bangla Golpo Online Reading pdf | Famous Story – Trending On the hilly roads of Uttarakhand | Pdf On the hilly roads of Uttarakhand | On the hilly roads of Uttarakhand App | Full On the hilly roads of Uttarakhand Reading | Bangla Golpo Online Reading Blogs | Trending online bangla golpo pdf

Best Story Blogs in Bengali | Live Bengali Story in English | Bangla Golpo Online Reading Ebook | Full Bangla Galpo online | On the hilly roads of Uttarakhand 2024 | New On the hilly roads of Uttarakhand – Episode | Golpo Dot Com Series | On the hilly roads of Uttarakhand Video | Story – On the hilly roads of Uttarakhand | New Bengali Web Story Audio

New Bengali Web Story Video | On the hilly roads of Uttarakhand Netflix | Audio Story – On the hilly roads of Uttarakhand | Video Story – On the hilly roads of Uttarakhand | Shabdodweep Competition | Story Writing Competition | Bengali Writer | Bengali Writer 2024 | Trending Bangla Golpo Online Reading | Top On the hilly roads of Uttarakhand | On the hilly roads of Uttarakhand Web Story | Best Read Online Bengali Story | Read Online Bengali Story 2024 | Trending online bangla golpo book pdf

Shabdodweep Bangla Golpo Online Reading | New On the hilly roads of Uttarakhand | Bengali Famous Story in pdf | Modern Online Bangla Galpo Download | Bangla Golpo Online Reading mp3 | Horror Adult Story | Read Online Bengali Story Collection | Modern Online Bangla Galpo mp4 | Modern Online Bangla Galpo Library | New Bengali Web Story Download | Full Live Bengali Story | Bengali Famous Story 2023 | Shabdodweep Bengali Famous Story | New Bengali Famous Story | Bengali Famous Story in pdf | Bengali Famous Story – video | Bengali Famous Story mp3 | Full Bengali Famous Story | Bengali Literature | Shabdodweep Magazine | Shabdodweep Web Magazine | Live Bengali Story Writer | Shabdodweep Writer | Trending online bangla golpo free download

Leave a Comment