...

New Bengali Poetry 2023 | কবিতাগুচ্ছ | বিপাশা চক্রবর্তী

Sharing Is Caring:
Bengali Poetry

স্মৃতি – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

হিয়ার ভিতর যত্নে গড়া সুপ্ত ভালোবাসা
তোমার কথা মনে করে জ্বালাই প্রাণে আশা।
কতো কথা জমা আছে হৃদয় ব্যাঙ্কের কাছে।
তোমার জন্য হৃদয় দুয়ার আজও খোলা আছে।
ছেলেবেলা ফিরে পেতে চিত্ত নাচে
পুতুল খেলা খেলতে গিয়ে খুকু কাপড় কাচে।
কতো খেলা ছিল মোদের ছোটবেলার মাঝে
খোকো খেলায় হারাতাম সব, তোমায় সকাল সাঁঝে।
লেখা পড়া না করলে যে তুমি দিতে বকা
সেসব কথা আজও কোথাও নেই লেখাজোকা।
সব স্মৃতি আজ মনে পড়ে একা একা বসে
স্মৃতির ব্যাঙ্ক ওই উজাড় হয় যে নয়নাশ্রুতে ভেসে।
শান্ত স্নিগ্ধ নির্মল হাসি আজও মনে পড়ে
প্রতি মুহূর্তে কলম যেন স্মৃতির কাব্য গড়ে।

ব্যথিত হৃদয় – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

অনেক আশা নিয়ে ছুটে গিয়েছিলাম তোমার কাছে
কতদিন পর তোমায় দেখবো একরাশ আশা স্বপ্নে আছে।
ভুলতে পারি না অতীতের স্মৃতি;সে হৃদয়ে বাজে,
হলদি নদী, তব টানেই ছুটে চলি নানান কাজে।
তোমার শান্ত স্নিগ্ধ ম্লান রূপ যে আমার পছন্দ নয়,
আম্ফান ঝড়ে তোমার সুন্দর সৌন্দর্য কে করল ক্ষয়।
শুনেছিলাম আমি লোকের মুখে তোমার কষ্টের কথা
তুমি বয়ে চল একা আপন বেগে যথাতথা।
জানো! অনেক আশা নিয়ে স্বজন সনে এসেছিলেম
তোমায় নিয়ে কত কথা আমি তাদের বলেছিলেম।
হায়! সব স্বপ্ন হলো ম্লান কথা গেল যে হারিয়ে,
তোমার পাশে রইলাম বসে আর তুমি রইলে ঘুমিয়ে।
খানিক সময় কাটালাম যে তোমার দিকে চেয়ে চেয়ে
হৃদয় ব্যাকুল হলো যে মোর জোয়ারের দেখা না পেয়ে।
তোমার সাথে জমে উঠলো আমার মন কষাকষি আর আড়ি
সন্ধ্যে হয়ে এলো রবি মামা অস্ত গেল, ফিরতে হবে বাড়ি।
হয়তো তোমার সাথে আর দেখা হবে না গো কোনোদিন
জমা রইল তোমার প্রতি আমার অনেক ভালোবাসার ঋণ।

নারী – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

নারী ভাবে পুরুষ মানেই বট বৃক্ষের ছায়া,
পুরুষ ভাবে নারী মানেই ভোগ বস্তুর কায়া।
নারী যত্ন করে ভালোবেসে সব উজাড় করে দেয়,
পুরুষ মানুষ সুযোগ বুঝে সব লুট করে নেয়।
সুযোগ পেলে পুরুষ তারে করে অপমান,
নারী ভাবে সহ্য করা ছাড়া তার নাই কোনো স্থান।
নারীর স্বাধীনতা থাকে কেবল পুরুষের হাতে,
ছোটবেলায় বাবা, দাদা পরে স্বামী রূপ অন্য কারো সাথে।
নারী যতই ভাবে শক্তিরূপিনী, সংহারকারিণী তার রূপ;
তবুও মায়ার বন্ধনে সে আবদ্ধ হয়ে খুঁজে পায় অন্ধকূপ।
নারী প্রতিবাদী রূপ নিয়ে যখন ধরে জীবনের হাল,
অসতী নাম নিয়ে তাকে সমাজে পথ চলতে হয় চিরকাল।
নারী শক্তি জেগে ওঠো! বলে যখন ওঠে কতো রকম কলরব,
অর্থের প্রাচুর্যে তা চাপা পড়ে, নতুবা ভয় দেখিয়ে গড়ে উঠে উপদ্রব।
তবুও কিছু নারী যখন খোঁজে তার স্বাধীনতার মানে
পুরুষ শাসিত সমাজ তাকে অসম্মানের পথে টানে।
তবুও আজ নারী শিখেছে প্রতিবাদী ভাষা,
তাতে নেই কোনো আবেগ নাই অকৃত্রিম ভালোবাসা।।

অঙ্গীকার – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

তোমার কথা মিষ্টি মাখা
তৃপ্তি আনে মনে,
কথার মাঝে লুকিয়ে আছে
যেন আপনজনে।

তোমার মুখের মিষ্টি হাসি
জাগায় মনে আশা,
তোমার কথা ভেবেই মনে
জাগে প্রেমের ভাষা।

কতো কষ্ট ছিল জমা
তোমার বুকের মাঝে,
আপন ভেবে বললে মোরে
আজই সকাল সাঁঝে।

মিত্র ভেবে থাকব পাশে
দিলেম কথা তোমায়,
সারাজীবন দুখের মাঝে
মিতালী ভেবো আমায়।

তোমায় কষ্টে দেখলে আমার
মন যে ভীষণ কাঁদে।
ছুটে যেতেই ইচ্ছে করে
পড়েছি এক ফাঁদে।

ভার্য্যা হলো ঐ রাজরানী
তুমি হলে তার বল,
সময় মতো পাওনা খেতে
একি তারই ফল।

অর্থের দাম্ভিকতা আছে
তোমার অনেক খানি।
ভালোবাসায় ভরা হৃদয়ে,
তব নেইকো পানি।

যাদের জন্য তোমার সঞ্চয়
তুমি তাদের কেউ না।
তাদের তরে তুমি কখনো
আর ভাববে না

অর্থের মাঝে অনর্থ যে
করে হানাহানি,
জীবন পথে চলতে হলে
সুখ পাওয়া চাই অনেক খানি।।

অসহায় মানুষ – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

নির্জন আঁধার নিঃসঙ্গ রাত
নিষ্প্রাণ শহর বাতাস,
নিষ্প্রভ দিন নেশায় রঙিন
হাসে না নীল আকাশ।

চারিদিকে নিস্তব্ধতা
যেন ভয়ের আকাশ,
লোকজনের ভিড় নেইতো কোথাও
বইছে ধূমহীন বাতাস।

এক অদৃশ্য জীবাণুর ভয়,
মানব জাতি ক্ষিপ্ত।
জীবাণুকে মারতে পারলে
হবে তারা তৃপ্ত।

কর্মের অভাব অর্থের সঙ্কট
নেই তো কোনো শান্তি,
খাদ্যের জন্য শিশু কাঁদে
মায়ের চোখে ক্লান্তি।

শ্রান্ত চোখে চেয়ে দেখো
সবাই কতো একা,
মুখে কথা নেই হাসি নেই
মাস্ক দিয়ে মুখ ঢাকা।

প্রকৃতির রূপ দেখতে যায় না
পর্যটকরা কেহ,
গঙ্গা স্নানে যায় না কভু
শুদ্ধ হয় না দেহ।।

কলমের লেখা – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

কতোদিন পর মনে হলো ঐ
পাহাড় যেন ডাকছে আমায়।
হাত বাড়িয়ে বলছে এসো সই
কতোদিন পর দেখবো তোমায়।

মনে হলো যেন শৃঙ্গের শ্রী
ঢেকেছে তার সুন্দর শোভা,
সবুজ আস্তরণে পিছল হলো পথ
শ্যামল অরণ্য যেন মনোলোভা।

ঝর্ণা তাহার অঝোর ধারায়
যেন বয়ে চলে একাকী,
লোকজনের ভিড় নেইতো কোথাও
করে না তো কেউ তার সাথে চালাকি।

আসমান থেকে যখন পড়ে জল
পাহাড়ের চূড়া যায় যে ভিজে,
অন্তর হতে যখন নামে অশ্রু ধারা
হৃদয় তখন কাঁদে নিজে নিজে।

পাহাড় যখন ডাকে হাতছানি দিয়ে
মন হয় যে ভীষণ উচাটন,
সুন্দর দৃশ্য ভাসে চোখের সামনে
ধরতে না পেরে মন করে টনটন।

সবুজ তরু সবুজ লতাপাতা ঐ
পাহাড় জুড়ে করে কতো নাচ,
কতো পাখি, কতো পতঙ্গ, কতো
বিষধর সাপ করে সেখানে বাচ্।

তাদের মাঝে ঘোরে কতো নরনারী
পথে পথে তাদের সাথে হয় দেখা,
এই বিশ্বে কেউ কেউ যায় হারিয়ে
হারায় না তো, কলমের কোনো লেখা।

কলকাতা – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

কলকাতা কলকাতা ওগো কলকাতা
খুব সুন্দর সজ্জিত মনোরমা তুমি
অপূর্ব সুন্দর রূপে মুগ্ধ তব ভূমি
তোমার বুকের পরে অপার ব্যস্ততা
তুমি যে সহ্যকারিণী দয়াময়ী মাতা
তোমার সন্তান গণ পেয়েছে তো জমি
তাইতো তোমায় তারা জানায় প্রণামি।
আবার কতো মানুষ বলে তুমি ত্রাতা।

গঙ্গার স্নেহ ধারা যে বয়ে চলে ঐ
তার পাড়ে গড়ে ওঠে কর্মে হইচই।

ভিন্ন ভিন্ন নর নারী করে নানা কাজ
কতো যে হসপিটাল সেবা নিকেতন
কাজের ভিড়েও তারা সাজে নানা সাজ
কলকাতা তুমি ওগো অরূপ রতন।

শরতের আগমন – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

বর্ষা বলে যাবো যাবো
শীত অনেক দূর,
তারই মাঝে শরৎ আনে
আগমনীর সুর।

চারিদিকে সেজে ওঠে
সবুজেরই সমারোহ,
চাষি ভাইরা মেতে ওঠে
চাষে অহরহ।

নদীর দুধারে ঐ দেখা যায়
কাশবনের শোভা,
শিউলি ফুলের মিষ্টি গন্ধে
প্রকৃতি যেন মনোলোভা।

মা আসবেন দুদিন পরে
সবার মনে আনন্দ,
আগের মতো দেবী দর্শনে
থাকবে না স্বাচ্ছন্দ্য।

মহামারীর করাল গ্রাসে
আমরা অসহায়,
চিন্ময়ী মাগো এই ত্রাস দূর হোক
তোমার কৃপায়।

প্রতিবছর নতুন বেশে সাজে
আবাল বৃদ্ধ বনিতা,
এবছর সাজবে নাকি কেউ?
তুমি উত্তর দাও মাতা।

আকাশ বাতাস মুখরিত হয়
শরতের আগমনে,
কাঁসর বাজে ঘন্টা বাজে
সবার মনে মনে।

বন্দিনী – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

চন্দ্রভাগা নাম তোমার, শুনেছি তুমি এক নদী অর্থাৎ নারী।
ভারতের হিমাচল প্রদেশের লাহাউল জেলায় তোমার জন্মস্থান।
ধরিত্রীর বুকে সুধাময় প্রকৃতি রূপে জন্মু কাশ্মীর হয়ে প্রবাহিত হয়েছ,
কোথায় যাচ্ছ মহীয়সী? তোমার গন্তব্য স্থল কি পাকিস্তান?
কিসের টানে তুমি যাচ্ছ সেখানে? যারা প্রতিমুহূর্তে তোমার মাতৃভূমিকে করছে খানখান।
হে স্রোতস্বিনী, পাঞ্জাবের সমতল ভূমি পেরিয়ে মিলিত হয়েছ সিন্ধু নদের সাথে।
এতই প্রেম তোমার? শত্রুর সাথে মিলায়েছো হাত!
প্রেমের বাহুডোরে বাঁধবে বলে কেন গিয়েছিলে রাক্ষসকুলে?
তারাইতো তোমায় বেঁধে ফেলল পরাধীনতার শিকলে।
বর্তমানে তোমার স্নিগ্ধ, শান্ত ,শীতল জল বরাদ্দ হয়েছে পাকিস্তানের জন্যে।
কি পেয়েছ সেখানে তুমি? হারায়েছ নিজ স্বাধীনতা-হয়েছ বন্দিনী।
আর কি পুরুষ ছিল না হেথা? নাকি তোমার পথ তাদের জন্য ছিল রুদ্ধ?
ব্রহ্মপুত্র, দামোদর, অজয় এরাও নদ, শক্তিশালী পুরুষ নামে খ্যাত।
এদের থেকে অনেক দূরে চলে গেলে, বন্দিনী নামে হলে অভিহিত।।

অহংকার – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

কৃষক হইয়া আমি ধান করি দান
মোর খাটুনির কাছে আছে তব মান।
মনে রেখো ধনী জন মোরা আছি বলে
খাবার ছড়িয়ে খাও অহমের ফলে

এতো অহম কিসের লাগি করো মনে
মোদের ঘামের দাম রয় তব ধনে।
শান্তি পাইনা মোরা দামের অভাবে
ঘরে বসে ফুর্তিতে মাতলে স্বভাবে।

সুরা খেয়ে নেশা করো রাতের বেলায়
মোর শিশু কাঁদে সেই খিদের জ্বালায়।
ঘরেতে নাই যে টাকা আছে যে কষ্ট
লাঙল কাঁধে নিয়ে যে জীবন নষ্ট।

প্রতিদিন কতো ভাবে টাকা করো ফাঁকা
স্টেশনে কতো যে শিশু কাঁদে একা একা।
যদি তারা পায়ে পড়ে চায় দুটো টাকা
যা- যা- ছুঁবি না বলছি, যতো নোংরা মাখা।

তোমাদেরই সম্পদে আছে কতো বিষ
সম্পত্তি রক্ষার্থে দাও নানা শীষ।
তোমাদের জন্য দীন, কাজ করে হীন
তোমরাই তাদেরকে করো ঘিন ঘিন।

তোমার যা কিছু সব তো রয়ে যাবে ভবে
আমার আমার বলেই লড়াই করবে।
কোনো কিছুই তোমার নয় ধরা মাঝে
হিংসায় তোমারা মরো ঐ সকাল সাঁঝে।

মানবতা – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

মানব ধর্ম বড় ধর্ম একথা সবাই জানে
কর্ম করতে গিয়ে সবাই
মানবতার কাছে হার মানে।
ভিখারি যদি ভিক্ষা চায়
ধনী করে তারে হীন,
সেইখানেতে মানবতার হয় সমাধিন।
চাষি ভাইরা কষ্ট করে ফলায় তাদের ফসল,
সঠিক মূল্য পায় না কভু জীবনটা হয় বিফল।
সেই ফসল নিয়ে যখন চলে কালবাজারি,
খিদের জ্বালায় চাষির ছেলে তখন করে মারামারি।
কম দামে কিনে ফসল বেশি দামে বেচে,
মনুষ্যত্বকে বলি দেয় অহংকে যাচে ।
অর্থের লোভে ভুলে যায় ধনী সম্প্রদায়,
গরিবের খেয়ে তারা গাড়ি বাড়ি হাঁকায় ।
অর্থই অর্থ আনে একথা সবাই জানে;
কম জিনিস কিনে বেশি দামে বেচে।
অর্থের নেশায় সব হয় অমানুষ,
সুরা তাদের নিমেষে করে দেয় বেহুঁশ।
ধরষনাদি কর্ম করে টাকা দিয়ে হয় খালাস,
রাতের বেলায় তাদের হাতে থাকে মদের গেলাস।
তারাই কিনা এই সমাজের সবার মাথার মনি,
সকাল হতে তারাই আবার সম্মান পায় জানি।
মুখোশ ধারি মুখোশ পরে করে যায় কর্ম,
এটাই কি তাদের আসল মানবতার ধর্ম?
অবাক হয়ে ভাবি মানবতার মূল্যটা ঠিক কি?
বিজ্ঞান উন্নত হলেও মানব সমাজ আজও মনুষ্যত্ব শেখেনি।।

জলধি – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

ঊষা আলোয় তব বক্ষ মাঝে তপন করে খেলা,
সোনালী ঢেউয়ের আলিঙ্গন যেন, পুরুষ প্রকৃতির মিলন মেলা।
তব হৃদ মাঝারে রবির কিরণ সোহাগ করে যখন,
নর নারী তব দর্শনে-অধির হয়ে ওঠে তখন।
ভাস্করের তেজে দীপ্ত হয়ে দেখাও তোমার শক্তি,
শশধর তোমায় আকৃষ্ট করে জাগায় প্রেম ভক্তি।
তোমার কাছে সবাই যায় প্রেমের পরশ পেতে,
ধাক্কা মেরে দাও কেন সরিয়ে ভূমাতার আঁচলেতে?
কারও ভাঙে কোমর, কারও বা লাগে হাত-পায়ে,
কেউবা তোমার টানে যায় যে অতলে তলিয়ে।
এক সময় ইন্দুর টান যখন যায় ধীরে ধীরে কমে,
ক্লান্ত হয়ে তোমার চোখে তখন অলসতা নামে।।

লড়াই – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

বিশ্ব জুড়ে চলছে লড়াই
অদৃশ্য ভাইরাসের সাথে।
মানব সমাজ হচ্ছে ভীত
অস্ত্র নাই কারো হাতে।

এ কেমন যুদ্ধ? হচ্ছে না রক্ত ক্ষয়!
শত্রু মিত্র সবাই মিলে পাচ্ছে ভীষণ ভয়।
বাজছে না দামামা ফাটছেনা বোমা,
ডাক্তারের কথা না শুনে চললে;
ভাইরাস করছেনা কাউকেই ক্ষমা।
বিজ্ঞানীরা অস্ত্র বানাতে সদাই তৎপর,
ভাইরাস ভায়া ভিন্ন রূপে হচ্ছে অগ্রসর।

রুগী বাঁচাতে ডাক্তার নার্স করছে ভীষণ লড়াই,
ভাইরাস মুচকি হেঁসে বলছে দেখি তোদের কতো বড়াই।
কেন এমন অভিশাপ নেমে এলো পৃথিবীর বুকে?
মাস্ক দিয়ে ঢেকে রাখতে হচ্ছে আজ মানুষের মুখকে।।

প্রেমের সিন্ধু – বিপাশা চক্রবর্তী [Bengali Poetry]

চোখে চোখে কথা বলা
মনের আবেগে ছুটে চলা
মিষ্টি প্রেমের মিষ্টি নেশা
জাগায় প্রেমের ভাষা।

উত্তম সুচিত্রার অমর প্রেম দেখে
নেশায় মাতি চোখে চোখ রেখে।
মনের ভাব চোখের মাঝে যায় হারিয়ে
অভিনয় জগতের সুখ বাস্তবে যায় পালিয়ে।

তাদের এই জুটি সিনেমায় দেখা যায়
অভিনয় জগতে তাদের সম কেউ নাহি হয়।
অভিনয় শেষে তারা ছিল কেবলই বন্ধু
সিনেমাতেই তারা ছিল শুধু ভরা প্রেমের সিন্ধু।

বিপাশা চক্রবর্তী | Bipasha Chakraborty

New Bengali Poetry 2023 | কবিতাগুচ্ছ | বিকাশ চন্দ

New Bengali Poetry 2023 | কবিতাগুচ্ছ | কল্যাণ সুন্দর হালদার

New Bengali Poetry 2023 | কবিতাগুচ্ছ | শুভশ্রী রায়

New Bengali Poetry 2023 | কবিতাগুচ্ছ | নীলমাধব প্রামাণিক

bee poem | poem about self love | story poem | poetry angel | narrative poetry examples | poetry reading near me | prose poetry examples | elegy poem | poetry reading | the tradition jericho brown | poetry websites | protest poetry | prayer poem | emotional poetry | spoken word poetry | poem about god | percy shelley poems | jane hirshfield | spiritual poems | graveyard poets | chapbook | poems about life | poems to read | found poem examples | poems about life and love | elizabeth bishop poems | poems about women | sister poems that make you cry | famous quotes from literature and poetry | mothers day poems from daughter | poem about community | 8 line poem | inspirational poetry quotes | poem about life journey | positive poems | short poem about life struggles | toni morrison poems | good bones poem | google poem | funny poems for adults | inspirational poems about life | friendship poem in english | paul laurence dunbar poems | freedom poem | sad poetry about life | Shabdoweep Founder

Leave a Comment

Seraphinite AcceleratorOptimized by Seraphinite Accelerator
Turns on site high speed to be attractive for people and search engines.