Sunday, August 7, 2022

নেড়ির কান্না - সুচন্দ্রা বসু | গল্প ২০২২ | Story 2022

নেড়ির কান্না

- সুচন্দ্রা বসু


চরণদাস পঞ্চাশটা বছর ধরে একই রকম জীবন কাটাচ্ছে। চরণদাস দেখতে  কালো, লোমশ শরীর বড় বড় দুই চোখ ভুরু জোরা পুরু। তাকালে ভয় করে। চরণদাস সবাইকে সন্দেহ করে।সে মনে করে এই দুনিয়ায় কাউকে বিশ্বাস করা যায় না । এমনকি সে নিজের বউকেও বিশ্বাস করে না। সে এক কারখানায় কাজ করে, সেরা মিস্ত্রি। বসতিতে তার নাম ডাক ছিল ।গায়ে জোর ছিল খুব। বসতির কেউ তার সঙ্গে পারত না। স্বভাব ছিল রূঢ়। সে রোজগার করত কিন্তু জমাতে পারত না। কারণ তার মদের নেশা ছিল। ছুটির দিনে মদ গিলে বট তলায় পড়ে থাকত আর গালাগালি দিত, সামনে কাউকে দেখলেই সে ঠ্যাঙানি দিত।হাতের সামনে লাঠি, জুতো, পাথর, ইঁট যা পেত তা ছুঁড়ে মারত।তাই তাকে কেউ দেখতে পারত না।অনেকে তাকে এড়িয়ে চলত।পালটা ঠ্যাঙানি দেবার কেউ কেউ চেষ্টা যদিও করেছে কিন্তু ওর সাথে কেউ পেরে ওঠে না। ওর ওই চেহারায় অন্ধকার রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকার ভঙ্গি দেখেই লোকে ভয়ে পালিয়ে যেত।
দাঁড়িয়ে উঠে চাপা গলায় গর্জে বলত,আয় না শালা শুয়োরের দল দেখি একবার। পালা বলছি কুত্তির ছাঁ। একমুখ দাড়ির ফাঁক দিয়ে হলদেটে দাঁতগুলো বের করে হো হো করে যখন হাসত,সে দাঁতের ঝিলিক দেখে কারো সাহস হত না অন্ধকার রাস্তায় এগিয়ে যায়। গালমন্দ শুনে ওর বউ ছুটে আসত। তাকে ঘরে টেনে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করত।কিন্তু সবই বৃথা হত তার।

কেন যে চরণদাস বুনো জানোয়ারের মতো ব্যবহার করত বোঝা দায়।নেশা কাটলে একবার তাকে পাড়ার মোড়ল ধরে  জিজ্ঞেস করে সে কেন এই ছাইপাঁশ গুলো গিলে গালমন্দ করে। চরণদাস বলে ছোট থেকে কত স্বপ্ন ছিল আমার । তার সবটাই বিফলে গেছে। তাইবলে বৌকে ধরে ঠ্যাঙাবি। সে তোর কি দোষ করেছে। নিজের ছেলের বয়সটা দেখেছিস।উত্তরে সে বলে ছোটবেলায় মাকে হারিয়েছি।তারপর থেকে কারখানায় কাজ করতে শুরু করেছি। সেই কারখানার হাড়ভাঙা খাটুনি  মালিকের মারধোর খেয়ে গা গতরে ব্যথার একমাত্র ওষুধ ছিল এই মদ।কেউকেউ যেত শুঁড়িখানায়। তাদের সাথে আমিও যেতাম।

প্রথম যেদিন এক চুমুক খেয়েছি। গা গোলাতে লাগলো। খানিকটা বমি হয়ে গেল। তারপর সেখানে শুয়ে পড়েছিলাম। মাথাটা ঘোরাচ্ছিল। চোখের পাতাটা ভারি হয়ে গেছিল। গা হাত কেমন ঝিমঝিম করে উঠেছিল । মুখ বিস্বাদ লেগেছিল। অন্ধকারে রাস্তায় পড়ে ছিলাম সারারাত। তারপর থেকে ওই মদ না খেলে আমি ঠিক থাকতে পারি না। তারপর এই ছুকড়িটার সাথে বন্ধুরা বিয়ে দিয়ে দিল।ছুকড়িটার বাবা ওই কারখানায় কাজ করত। হঠাৎই ওর বাবা মারা যেতে ওকে ঘরের বউ করে তুলে আনলাম। জন্মের সময় মা মারা যায় ওর ।এক বুড়ি পিসি তাকে মানুষ করে। তারপর সে পিসিও মারা যায়। ওই মেয়েকে নিয়েই বেঁচেছিল বাবা।

মোড়ল বলল তবে ওই নিরীহ মেয়েটার গায়ে হাত তুলিস কেন? দেখেছিস তাকিয়ে  হাত পা গুলোয় কেমন দাগড়া দাগড়া হয়ে ফুলে উঠেছে।
কেন মারব না। আমার নেশার জিনিস লুকিয়ে রাখে কেন? আমি কি ওকে টাকা পয়সা কম দিই। 
তোর শরীর যাতে ভালো  থাকে তাই তো ও  লুকিয়ে রাখে। তুই তো বুঝতেই চাস না ওর ভালোবাসা। হুম ভালোবাসার ক্যাথায় আগুন। 

একবার হয়েছে কি রাতের খাওয়ার পরে বাসন গোছ করে শুতে আসতে বউটার দেরি হয়েছে।রান্নাঘরে গিয়ে টান মেরে সব বাসন ফেলে চুলের ঝুঁটি ধরে দিল গুঁতো।গুঁতো খেয়ে চিৎকার করে মাটিতে পড়ে গেল। আর মাকে বাঁচাতে ছুটে এলো ছেলে  হাতে লাঠি নিয়ে। ছেলেকে লাঠি হাতে দেখে চুলের ঝুঁটি ছেড়ে সে মদের বোতল হাতে বাইরে বেরিয়ে যায় অন্ধকারে রাস্তায় বটতলায় বসে গান জুড়ে দেয়। রাগ হলে সে এরকমই করত। যতক্ষণ না বোতল খালি হয় ওর গান চলতে থাকে ।সে সময় ওর পাশে এসে ঘুমায় ওর আদরের এক নেড়ি।ওই নেড়ি ছিল তার খুব ভক্ত। তবে তাকে খুব যে আদর করত তা নয়। তবে তারা এক পাতে খেত।ভুলেও তাকে কখনও গালমন্দ করে মারধোর করত না। বোতলের মদ শেষ হলে সেখানেই কুকুরের পাশে শুয়ে সে ঘুমিয়ে পড়ত। ভোরে কারখানার বাঁশির আওয়াজে ঘুম ভাঙত। কিন্তু সেদিন আর তার ঘুম ভাঙছিল না। ডাক্তার এসে দেখে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। তার প্রিয় নেড়ি কুকুরটা অনেকক্ষণ  তার দেহটা আগলে রেখেছিল। তারপর তার দেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার সময় সঙ্গে সঙ্গে গেছিল। ফিরে অন্ধকার রাস্তায় বটতলায় চরণদাসের জন্য কাঁদছিল নেড়ি, ভৌউউউউ ভৌউউউউ।


নেড়ির কান্না | বোবা ক্রন্দন | নেড়ি কুত্তা | নেড়ি কুকুর | মানুষের প্রথম ভাষা কান্না | কান্নার বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা | মানুষ কেন কান্না করে | কান্না করা | ছেলেদের কান্না | কান্না ছবি | কান্না অর্থ | কান্না নিয়ে স্ট্যাটাস | বাচ্চার কান্না | কথায় কথায় কান্না | কান্না নিয়ে উক্তি | কান্না কেন স্বাস্থ্যের জন্য ভালো | কুমিরের কান্না | শিশুর কান্না | কাশ্মীরের কান্না | শব্দদ্বীপের লেখক | শব্দদ্বীপ | সেরা বাংলা গল্প | গল্প ও গল্পকার | সেরা সাহিত্যিক | সেরা গল্পকার ২০২২ | বাংলা বিশ্ব গল্প | বাংলা গল্প ২০২২ | বাংলা ম্যাগাজিন | ম্যাগাজিন পত্রিকা | শব্দদ্বীপ ম্যাগাজিন


Bengali Poetry | Bangla kobita | Kabitaguccha 2022 | Poetry Collection | Book Fair 2022 | Bengali Poem | Shabdodweep Writer | Shabdodweep | Poet | Story | Galpoguccha | Galpo | Bangla Galpo | Bengali Story | Bengali Article | Bangla Prabandha | Probondho | Definite Article | Article Writer | Short Article | Long Article | Article 2022


সুচন্দ্রা বসু | Suchandra Basu


No comments:

Post a Comment