Wednesday, February 2, 2022

বর্তমানে বেঁচে থাকার মহামন্ত্রই হল সহনশীল হওয়া - রূপশঙ্কর আচার্য্য [প্রবন্ধ / article]

বর্তমানে বেঁচে থাকার মহামন্ত্রই হল সহনশীল হওয়া

- রূপশঙ্কর আচার্য্য


আমি কঠিনভাবে সংকল্প গ্রহণ করলাম। আমি শপথ নিলাম যেকোনো পরিস্থিতিতেই এই বিভীষিকাময়, রোমাঞ্চকর, অতিরঞ্জিত জগতে যদি বর্তমান পরিস্থিতি অনুসারে নিজের অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখতে হয় তাহলে সহনশীলতার সাধনা করতে হবে।

প্রতিনিয়ত, প্রতিমুহূর্তে যে ঘটনা ঘটে চলেছে তাকে সহ্য করতে হচ্ছে। মানুষ যন্ত্রণায় কাতর হচ্ছে। মানুষের জীবনে হাহাকার। শুধু ব্যর্থতা আর ব্যর্থতা! একবারের জন্যও সাফল্য হৃদয়ের দরবারে উঁকিঝুঁকি মারল না। একেই জীবন হতাশায় ভরা। এভাবে মানুষ বাঁচতে পারে?

হ্যাঁ, এভাবেই মানুষ বেঁচে এসেছে, এভাবেই মানুষের অতীত কেটেছে, এভাবেই মানুষ বাঁচে। বর্তমানের সঙ্গে সংঘর্ষ করছে, লড়ছে নিজের অস্তিত্বকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য চেষ্টা করছে।।

যারা দুর্বল তাদের হৃদয় মনেপ্রাণে শক্তি যোগান দিচ্ছে অপর মানুষজন। বিভিন্ন ধরনের কলাকৌশল ও কঠিন অতীত এই দুর্বল মানুষ কে লড়াই করার জন্য, সংঘর্ষ করার জন্য অনুপ্রাণিত করে চলেছে। আমাদের দৃঢ় সংকল্প হলো নিজেদের সহনশীলতাকে আরও আরও গভীরভাবে মজবুত করা। আমাদেরকে মেনে নিতেই হবে জগতের সমস্ত কিছুই দুঃখ-যন্ত্রণাময়। এই দুঃখ-যন্ত্রণাময় জগতে সুখ বলতে দুঃখেরই ক্ষণকালের অনুভূতি ।

"এটা এরকম কারণ অন্য রকম হতে পারে না " ---এই ভাবনার উপর ভিত্তি করেই নিজেদের অস্তিত্বকে টিকিয়ে রেখেছি। নিজেদের সম্মুখে কি অন্যায়, কি অত্যাচার, মৃত্যুর পর মৃত্যু, হত্যার পর হত্যা, রাহাজানি, ধর্ষণ ......

রক্তাক্ত হয়ে চলেছে মানুষের জীবন, রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, রক্তের স্রোতে ভেসে যাচ্ছে। তবুও দেখো আমরা নিজের অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখার জন্য নিজেদের পরিবারকে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কেবলমাত্র এই অন্যায় এই অত্যাচার সহ্য করতে না পারলেও যোগ সাধনার মত সহ্য ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করতে পেরেছি মননশীল হতে পেরেছি।

অন্যায় কে কিভাবে মূক-বধিরের মত সহ্য করতে হয় তা উপলব্ধি করছি। তাই বারে বারে আমরা ভীরু কাপুরুষ হয়েও প্রতিবাদ করতে গিয়ে কণ্ঠ রুদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। কিভাবে করব এই প্রতিবাদ? আমাদের শিক্ষিত সমাজে শিক্ষিত মানুষের কাছে প্রতিবাদ করার একমাত্র উপায় হল নিস্তব্ধ কলম। এই কলম নামক অস্ত্রই অত্যাচারের বিরুদ্ধে কঠিনভাবে রুখে দাঁড়াতে পারবে। সেক্ষেত্রেও প্রাণ সংশয় আছে! তাই দৃঢ় সংকল্প এবং দৃঢ় প্রতিজ্ঞাই হল সহ্য করো, সহ্য করো, সহ্য ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলো। কিভাবে সহ্য করতে পারো তারই অনুশীলন করো।

সম্যক দর্শন বা সম্যক দৃষ্টি, সম্যক সংকল্প, সম্যক বাক বা বাক সংযম, সম্যক কর্মান্ত, সম্যক আজীব, সম্যক ব্যায়াম, সম্যক স্মৃতি এবং সম্যক সমাধি এই অষ্টাঙ্গিক মার্গের মাধ্যমে সহনশীল রূপে নিজেকে তৈরি করতে হবে। এই হল হৃদয়ের সংকল্প। কেবল সহ্য ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে হবে তবেই নিজের অস্তিত্ব রক্ষা পাবে।


প্রবন্ধ | articleব্যক্তিগত প্রবন্ধ | বাংলা প্রবন্ধ | সহনশীলতার মহামন্ত্র | বেঁচে থাকার মহামন্ত্র

No comments:

Post a Comment