Sunday, December 12, 2021

সাথীহারা - কুহেলী দাশগুপ্ত [ছবি দেখে লেখা - পর্ব ২]

সাথীহারা

- কুহেলী দাশগুপ্ত


  হেমন্তের সকাল। গেরস্থ ঘরে পাকা ধান গোলায় ভরে তুলে পার্বণে মেতে ওঠার মরসুম চলছে। মাঠের সোনালি ফসল তখনো সবটা কাটা হয়ে ওঠেনি।  বছর ভর এখানে শালিকের মেলা বসে। ভোর সকালের অরুণ রাগের মিঠে রোদ্দুর যখন ধান মাঠের গায়ে পড়ে লুটোপুটি খায়, তখন কোথা হতে শালিকেরা দলে দলে এসে চড়ুইভাতিতে মেতে ওঠে যেন! আট বিঘে এই জমি  প্রান্তরের  নাম" ধান শালিকের মাঠ"  লোক মুখে ফেরে।
 
      শালিকের ঝাঁকেরা খুনসুটিতে মেতে ওঠে কিচকিচ রবে। খুদকূঁড়ো মুখে দিনের আলো ফুরনোর আগেই  ছোট্ট বাসায় ফেরে। কচি ছানাদের মুখে খাবার তুলে দিতে মা শালিকেরা ক্ষণে ক্ষণে বাসায় উড়ে যায়। এরই মধ্যে এক শালিক দম্পতির  ডিম ফুটে দুটি ছানা মাথা তুলেছে। সদ্য মাতাপিতা হয়ে তারা তটস্থ। ছানাদের চোখ ফোটেনি,তাই দায়িত্বশীল মাতা কাছ ছাড়া করতে চায় না। শালিক কত্তা একাই যায় বন্ধুদলের সাথে খাবারের সন্ধানে। ক'দিন পর  ছানাদের  চোখ ফুটলে, কত্তা কন গিন্নীরে-

---"কিগো, আজ বেরুবে নাকি? চলো আজ মাঠে গিয়ে গায়ে রোদ্দুর মাখবে। একটু ডানা মেলে চলে ফিরলে গায়ে বল পাবে"।
--"মন তো চায়। কিন্তু ভয় হয়,পাছে অবোধ ছেলেপুলে গুলো এসে খেলার ছলে ছানাদের না কোন ক্ষতি করে!দুজনে মিলে গেলে বেশি খাবার ও আনতে পারব"।
---"তবে চলো গিন্নী। এই গাছের কোটরে বাছাদের কেউ ঠাহর করবে না। তুমি বেশ আসা যাওয়া করে ওদের  খাইয়ে যাবে"।
দু'জনে উড়ে যায় ধান মাঠে। রোদ্দুরে মিশে যায় সখা সখীদের ভীড়ে। ভাব বিনিময়ের আনন্দে মাঠ ভরে ওঠে কলতানে। এরই মাঝে মা শালিক কয়েক বার গিয়ে ছানাদের দেখে এসেছে,খাইয়েছে। মায়ের মন তো!
দুপুরের দিকে কিছু দুষ্টু ছেলের দল গুলতি ছুঁড়ে খেলায়  মাতে।শালিকের ঝাঁক ইতি উতি ছড়িয়ে পড়ে। তখনই শালিক গিন্নী বাচ্চাদের দেখে ফিরছিল। এক অব্যর্থ টিপে বড় ঢিল গায়ে লেগে লুটিয়ে পড়ে মা শালিক।  জমির একধারে আধবোজা চোখে ধিকি ধিকি করে প্রাণ। কিচকিচ রবে শালিকেরা ছুটে আসে। অসহায়, সাথীহারা শালিকটি থেকে থেকে ডেকে চলে। বন্ধুদের সমবেদনার মাঝে ও ছানাদের কথা ভেবে সে যে একা,বড্ড একা।

No comments:

Post a Comment