Saturday, December 11, 2021

অপেক্ষা - কুহেলী দাশগুপ্ত [ছবি দেখে লেখা - পর্ব ১]

অপেক্ষা

- কুহেলী দাশগুপ্ত 


-"তুই ঠিক জানস দাদা? মায়ে আইবো"?
-"হ, দিম্মা কইছে, একদিন  মা ঠিইইক আইবো"।
-"ম্যালা দিন ইহানে আহি,কইরে দাদা মা তো আয়েনা"!
রোজ বিকেলে দুই ভাই ধলা আর গোরা তাদের পোষা ছাগল লালীরে আনতি ধান মাঠে যায়। লালীরে নিয়ে আল পথ ধরে শিয়াখালের জঙ্গলের রাস্তা পেরিয়ে রেললাইনের ধারে দাঁড়িয়ে থাকে।একটু দূরে দৃষ্টি সীমার মধ্যে শিয়াখাল ইস্টিশন। দুপাশে ঘন জঙ্গলের মাঝ দিয়ে রেলপথ চলে গেছে। অনেকটা সময় পার করে একটা গাড়ী ঢোকে। দু'চার জন নামে। রেলগাড়ী ধীরে চলে মিলিয়ে যায় দূরের পথ পানে।দুই জোড়া অবাক দৃষ্টি শুধু রোজ এসে যেন কার অপেক্ষা করে!
    "গোরা ধলা---'অ-গোরা--ধলা রে? কনে গেলি তরা?  সাঁঝ বেলা পড়ি গ্যাল। লালীরে নে ঘর যাবি নে?" দুই ভাই  দিম্মার গলা শুনে দৌঁড়ে যায় জঙ্গলের রাস্তা পেরিয়ে মাঠের দিকে। 
 বৃদ্ধা শোভারানি নাতিদের জঙ্গলের রাস্তা দিয়ে ফিরতে দেখে বিরক্ত হয়।-"তগো না কইছি ওইহানে যাবিনা। হগ্গল দিন আমারে ছোডাস। ক্যান যাস?জঙ্গলে কত কি  আছে জানস"?
-‐-"কি আছে গো দিম্মা? বাঘ আছে"? গোরা শুধোয়।
--"হ, আছেই তো। আর কত কি!"
‐---"হাছা কইছ দিম্মা? আমাগো চক্ষে কিছু পড়ে নাই তো! হেই লাইন ধারে যাই মায়েরে খুঁজতি। তুমি না কইছ মা আইবো"! ধলা কয়।
--"আইবো রে আইবো। তরা  পড়ালিখা শ্যাষ কর, আমার নক্ষ্মী ,তগো মা আইবো নে"।
বলতে গিয়ে বৃদ্ধার চোখ ছলছল করে ওঠে। লক্ষ্মী শোভারানির একমাত্র মেয়ে। রক্তবমি হয়ে সোয়ামীটা মরি গ্যালো। ছোড ছাওয়াল দুটিরে খাতি পড়তি দিতে ট্যাহা লাগবো। পড়শী মিনতি মাসি কাম কাইজ আছে বলি শহর  নিছিলো। তিন চাইর দিন বাদে মিনতি আইয়া কইছিল,নক্ষ্মী হারায় গ্যাছে । অ্যাত্তো বড় শহর,  খোঁজ মিলে নাই। অসহায় বৃদ্ধা নাতিগো আগলায় আর  ভরসা দেন। মাইয়া তার ফিরব কিনা ক্যাডা জানে! পথ চাইয়া তিনডা বছর কাডি গ্যাল।

No comments:

Post a Comment