Tuesday, September 7, 2021

শিক্ষক দিবস -- ভিন্ন ভাবনায় - সৌম্য ঘোষ

শিক্ষক দিবস -- ভিন্ন ভাবনায়

- সৌম্য ঘোষ


        ৫ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণাণের ১৩২ তম জন্মদিবস । ভারতে ৫ই সেপ্টেম্বরকে শিক্ষক দিবস হিসেবে পালন করা হয় ১৯৬২ সাল থেকে । বিশ্ব শিক্ষক দিবস ও শিক্ষা উন্নয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকদের অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ১৯৬৩ সাল থেকে ৫ই অক্টোবরকে " বিশ্ব শিক্ষক দিবস" হিসাবে পালন করা হয় । বিশ্বে ১০০টি দেশে শিক্ষক দিবস পালন করা হয়।

         "শিক্ষক" শব্দটির অর্থ কী ?
অত্যন্ত ব্যাপক সন্দেহ নেই । বাংলা " শিক্ষা" শব্দ এসেছে " শাস" ধাতু থেকে । অর্থাৎ শাসন করা বা উপদেশ দান করা । ইংরেজি  "education" শব্দটি এসেছে ল্যাটিন "educatum" শব্দ থেকে । যার অর্থ হলো  "বাহির করে আনা'' । অর্থাৎ ভেতরের সম্ভাবনাকে বাইরে বের করে আনা । সক্রেটিস বলেছিলেন,  "শিক্ষা হলো মিথ্যার অপনোদন ও সত্যের বিকাশ ।" অ্যারিস্টোটল বলেন, " সুস্থ দেহে সুস্থ মন তৈরি করাই হলো শিক্ষা।"  কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাষায়, " শিক্ষা হল তাই যা আমাদেরকে কেবল তথ্য পরিবেশন করে না। বিশ্বসত্তার সাথে  সামঞ্জস্য রেখে আমাদের জীবনকে গড়ে তোলা ।
          আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা ও অভিমত, জীবনের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হলেন-- "মা"। জীবন লাভ করার পর থেকেই জীবনের প্রতি পাতায় আমরা যা শিখি, তার প্রথম শিক্ষক  স্বয়ং "মা" । কথায় আছে, একশত শিক্ষকের সমান একজন মা ।
          এখানে আমি মাননীয় পাঠকদের কাছে একটি বিনীত প্রশ্ন রাখছি," শিক্ষক কে ?"----- ছাত্র-ছাত্রীদের ভেতরের শক্তিকে উপলব্ধি করে, সেই শক্তিকে বিকশিত করেন যিনি। তাদের সমস্ত জড়তা- দ্বিধা- ভয় কে কাটিয়ে দিয়ে স্বপ্নযাত্রার সূচনা ঘটান যিনি। যিনি গন্তব্য নয়, বরং পথ হাঁটতে শেখান। যিনি সিদ্ধান্ত চাপিয়ে না দিয়ে বরং কত ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়, তার কৌশল শিখিয়ে দেন। সকল সীমাবদ্ধতাকে দূরে ঠেলে, সম্ভাবনাকে প্রাধান্য দেন যিনি -------- তিনি ই হলেন একজন আদর্শ শিক্ষক । শিক্ষা হলো সম্ভাবনার পরিপূর্ণ বিকাশ সাধনের জন্য অব্যহত অনুশীলন ।
          বর্তমান প্রেক্ষিতে দুই প্রকার শিক্ষা দেখি--- প্রত্যক্ষ ও অপ্রত্যক্ষ শিক্ষা। শিক্ষার আনুষ্ঠানিক প্রতিষ্ঠান হলো বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়। পরীক্ষায় অধিক নম্বর পেয়ে জীবনের ইঁদুর দৌড় প্রতিযোগিতায় সফল হওয়ার লড়াই চলে এখান থেকেই।  " শিক্ষা আনে চেতনা",  বা  " শিক্ষা গড়ে দেশের ভবিষ্যৎ" ---- এই বহুকথিত  স্লোগানগুলি বর্তমানে ক্লিশ হয়ে গেছে । মানুষ গড়ার শিক্ষা বর্তমানের সিলেবাসে অন্তর্গত নয়। প্রাতিষ্ঠানিক বিদ্যালয় বা মহাবিদ্যালয়ে যত টুকু শেখা হয় বেশিরভাগটাই অপ্রত্যক্ষ শিক্ষা । প্রত্যক্ষ শিক্ষা নামমাত্র বা নেই বললেই চলে । তাই সামাজিক সম্পর্ক, সামাজিক মূল্যবোধ, সহনশীলতা, অসাম্প্রদায়িক মনন- চিন্তন , মুক্তমনে সুসংস্কার এখানে গড়ে ওঠে না।
          পরিবর্তিত প্রেক্ষাপটে শিক্ষা জগতে স্বাভাবিকভাবে প্রবেশ করেছে নৈ:রাজ্য । বর্তমানে সব কিছুই বাজার অর্থনীতির দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করা হয়ে থাকে । সবকিছুই এখন লেনদেন । ফলে, শিক্ষা এখন "পণ্য" । তাই সহমর্মিতাহীন , আনুগত্যহীন, শ্রদ্ধা-স্নেহ-মমতা-দায়িত্ববোধ হীন এক অমানবিক সম্পর্ক দানা বেঁধেছে । শিক্ষক ও শিক্ষা জগতের এই নৈ:রাজ্য আজ ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে । বাজার অর্থনীতির যে ব্যবস্থাপনা, যে বিচ্ছিন্নতার শেকড় সমাজের বুকে প্রবেশ করেছে , তার মূল উৎপাটিত না করলে এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির পরিবর্তন সম্ভব নয়  ।।

5 comments: