Friday, September 10, 2021

ছুটির দিন - রূপশঙ্কর আচার্য্য [ইভেন্ট - ছুটির দিন]

ছুটির দিন
- রূপশঙ্কর আচার্য্য

সেদিন ছিল ছুটির দিন।দিনটি  ছিল রবিঠাকুর এর জন্মদিন।আমার একটি গৃহশিক্ষকতা করার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান -"আশা শিক্ষা নিকেতন" নামে একটি প্রতিষ্ঠান আছে।আজ তাই এই প্রতিষ্ঠানে সংক্ষিপ্তভাবে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

ভোর ভোর আমি ও আমার বন্ধুরা, ছাত্র ছাত্রীরা স্নান সেরে ছেলে রা  সাদা পাঞ্জাবী-ধুতি,মেয়েরা লাল পাড় বাসন্তী বর্ণের শাড়ী পড়ে তৈরি।
প্রত্যেকে নিজ নিজ কাজে ব্যস্ত আছে।কেউ মঞ্চ সাজাচ্ছে, কেউ রবিঠাকুরের প্রতিকৃতিতে ফুলের মালা দিয়ে সুসজ্জিত করে তুলেছে,আবার কেউ অতিথি আপ্যায়ন এর জন্য ব্যস্ত।

মঞ্চ খুব সুন্দর ভাবে সেজে উঠেছে।মঞ্চ নিজে যেন জীবন্ত হয়ে উঠেছে।
এদিকে নৃত্যের মহড়া,গানের ও আবৃত্তির নাটকের মহড়া চলছে।

এমন সময় অতিথি দের আসন গ্রহনের আহ্বান করে বরণ করেন আমাদের প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার লক্ষ্মীকান্ত কর্মকার মহাশয়।
তিনিই তাঁর হাতের সুনিপুন শৈলীতে মঞ্চ কে প্রাণময় করে তুলেছেন। এই প্রতিষ্ঠানের খুব ভালো মেধাবী ছাত্র কে দিয়ে কবিগুরুর প্রতিকৃতিতে মাল্য দান করানো হয়।আমরা বর্তমান প্রজন্মের যুবসমাজ কে দেশের মেরুদন্ড মনে করেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
কবিগুরুর গান দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হলো।
দুঃস্থ ছাত্র ও বাচ্চাদের পোশাক ,বই-খাতা,খাবার ও কিছু ফল দেওয়া হয় ও বড়দের শীত বস্ত্র দেওয়া হয়।তাদের কে বোঝানো হয় এই প্রতিষ্ঠানের দ্বারা যে,আমরা সবাই এই ভারত মাতার সন্তান,সকলের অধিকার আছে ভালো ভাবে শিক্ষা অর্জন করে আদর্শ মানব হওয়ার।
পরে প্রাক্তন ছাত্র রা কিছু কথা ও গানের অনুঠান দিয়ে প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি আরো উজ্জ্বল করে তোলে।আমরা যে প্রত্যেকে পরের তোরে এটা সাধারণ মানুষ কে বোঝানোই ও নীতিবোধের শিক্ষা যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তা জানানোই আজ এই শুভ দিনে আমার ও সকল সদস্যের লক্ষ্য ছিল।
অনুষ্ঠানের শেষে আমি পাগলের অভিনয় করি এবং বোঝাতে চাই যে,একজন পাগল বুঝতে পারছে বিপ্লবী,মনীষী,মহাপুরুষ,বিদ্যাসাগর, কবিগুরু,নজরুল এই মহান দেবতুল্য মনীষীদের স্ট্যাচুর মূল্য কেবল জন্ম -মৃত্যু দিন নয়,প্রতিটি মুহূর্তে এর মূল্য রয়েছে।

1 comment: