Tuesday, September 7, 2021

আগন্তুক - ত্রিভুবন জিৎ মুখার্জী

আগন্তুক

- ত্রিভুবন জিৎ মুখার্জী


আরাম কেদারায় বসে সকালের রোদ পোয়াচ্ছি হটাত কলিং বেলটা বেজে উঠলো । এই সাত সকালে কে এলো? মঞ্জু আমার কাজের মাসিকে বললাম দোর খুলে দেখত কে এলো । তোর মাসি বাথরুমে, আমি একটু রোদ পোয়াচ্ছি । অনেকদিন এরকম মিষ্টি রোদ ওঠেনি । ব্যাল কনিতে ফুলের গাছ লাগিয়েছি । বেশ কিছু ফুল ফুটেছে যেমন টগর, বেল ফুল, গোলাপ প্রায় চার রকমের, জবা, নীল অপরাজিতা, রজনীগন্ধা । বাতাসে সুন্দর এক সুবাস । বেশ লাগছে । এই সময় কে এলো?
মেসো এক সন্ন্যাসী এসেছেন বলছেন উনি আপনার সঙ্গে এক কলেজে পড়তেন । অগত্যা উঠে পড়ি । আমার সঙ্গে কলেজে পড়তেন তিনি সন্ন্যাসী! কেমন আশ্চর্য লাগলো শুনতে । সদর দরজার কাছে গিয়ে দেখি খুব চেনা চেনা মনে হচ্ছে কিন্তু নামটা ঠিক মনে করতে পারছিনা ।
- ত্রিভুবন , আমি অর্ণব,অর্ণব চক্রবর্তী তোর সঙ্গে পড়তাম । ভুলে গেলি । তবে এখন আমার নাম স্বামী চিন্ময় নন্দ । রামকৃষ্ণ মিশন ,কন্যাকুমারী আমার ঠিকানা । আমাদের ব্যাচ মেট দের নিয়ে যে ডাইরিটা 2012 সালে বেরিয়েছে সেটা আমার অনেক সুবিধে করে দিয়েছে । অনেকেই এরমধ্যে অবসর গ্রহণ করেছে । তুইও 2011 তে রিটায়ার করেছিস দেখলাম । প্রত্যেকের মোবাইল নাম্বার / ল্যান্ড লাইন নাম্বার,ঠিকানা এবং ফটো সহ সমস্ত তথ্য দেওয়া আছে । কাজেই একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার অনেক সুবিধে হবে । তোর কথা অনেক মনে করি ভুবনেশ্বর এলে । তাই তোকে দেখা করতে 2015 সালে এলাম । তোর কেমন লাগছে জানিনা আমার ভীষণ ভালো লাগছে । ভেতরে আসতে বলবিনা ।
- আমি অপ্রস্তুতে পড়েযাই । জিভ কেটে বলি ক্ষমা করিস ভাই হঠাত চিনতে পারিনি । আমায় ভুল বুঝিসনা । ভেতরে আয় । ও হ্যাঁ হ্যাঁ অর্ণব! কিন্তু কি করে চিনি বল তোকে কেউ দেখলে চিনতে পারবেনা । কারণ তুই অনেকটা বদলে গিয়েছিস ভাই । আয় আয় । অনেকদিন পর দেখা । তা প্রায় 40 বছর হবে বল !
- হ্যাঁ তা হবে । তোরা সংসার ধর্মে এত ব্যাস্ত থাকিস সবাইকে মনেরাখা কঠিন ব্যাপার । একটা কথা মনে রাখিস সন্ন্যাসীরা কখনো রাগ , অভিমান, ঈর্ষা এসব করেনা । যে করে সে সন্যাসী নয় ।- আমরা দুজনে আমার বৈঠক খানায় বসলাম । কলেজ জীবনের কথা সব মনে পড়ে গেল
অনেক দিন আগের কথা মনে পড়ে গেল । আমাদের ক্লাসে নিবেদিতা পড়তো । ও সব মেয়েদের থেকে আলাদা ছিল । দেখতে সত্যি যাকে বলে সুন্দরী তাই কিন্তু তিরিক্ষি মেজাজ । খুব অহংকারী মেয়ে ছিল । কারুর সঙ্গে কথা বলতো না একমাত্র অর্ণব ছাড়া । অর্ণব পড়াশুনোয় ভালো ছিল । বিজ্ঞানের ছাত্র আমরা সকলেই তাই, প্র্যাকটিকাল ক্লাসে গ্রুপের সকলে এক হতাম । কোন এক্সপেরিমেন্ট ল্যাব এসিস্টেন্ট বোঝানোর সময় অর্ণব মন দিয়ে সেটা বুঝত । আমার চোখ নিবেদিতার ওপর, ও কি করছে সেটা নিরীক্ষণ করা । ওকে দেখতাম অর্ণব কে লক্ষ করতো । আর নিজের এক্সপেরিমেন্টের দিকেও নজর রাখতো । মেয়েটাকে বোঝা মুশকিল ।
এইসব গোপন কথা অর্ণব কে বলা যায়না । ও চটে যেতে পারে ।
এরমধ্যে গিন্নি চলে এলেন । আমি পরিচয় করিয়ে দিলাম...অর্ণব আমার সঙ্গে এক কলেজে পড়তো আবার আমার স্ত্রীর দিকে তাকিয়ে অর্ণব কে বলি,আমার হোম মেকার আমার জীবন সঙ্গিনী, আমার সুখ দুঃখের সাথী । । দুজনে নমস্কার বিনিময় করলেন । গিন্নি বললেন আপনি চা খাবেন স্বামীজি ।
- হ্যাঁ হলে মন্দ হয়না ।
- এবার জানতে পারিকি তুই কি করে আমার ঠিকানা জানলি । আমায় ফোন করতে পারতিস আমি নিজে গিয়ে তোকে নিয়ে আসতাম ।
- তবে আর ইংরেজরা সারপ্রাইস শব্দটা ভারতীয়দের মধ্যে গেঁথে দিয়েছে কেন । হঠাত দেখার মজাই আলাদা । কি বল? প্রথমেই বলেছি আমাদের ব্যাচ মেটদের নিয়ে যে ডায়রিটা ছাপানো হয়েছে ওতে সকলের ঠিকানা, ফ্যামিলি ফটো ইত্যাদি সব আছে ।
- হ্যাঁ তা অবশ্য ঠিক ।
- এবার তোর কথা বল । তুই কেন সন্ন্যাস নিলি?
এটার উত্তর দিতে গেলে আমার সম্পূর্ণ ইতিহাস বলতে হয় । তুই জানিস আমি পড়াশুনোয় বরা বর ই ভালো ছিলাম । স্নাতক ডিগ্রি পাওয়ার পর বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি করি । সেই সময় আমার সঙ্গে নিবেদিতাও ছিল আমার ক্লাসমেট । মনেপড়ে নিবেদিতা রে !
-আমি না জানার মতন ভান করি। কোন নিবেদিতা বলত ?
- বাহ ভুলেগেলি ! না বৌদির সামনে বলতে লজ্যা পাচ্ছিস !
- হ্যাঁ হ্যাঁ মনেপড়েছে । খুব অহংকারী মেয়েটা ছিল । রুপের আর পড়ায় ভালো বলে ।
- না ও আমার সঙ্গে সর্বদা ভালো ব্যাবহার করত । শোন , আমরা এক ক্লাসে পড়তাম বেনারসে । আমি হোস্টেলে থাকতাম ও ওর মাসির বাড়িতে থেকে ক্লাস করতো । এরমধ্যে সত্যি প্রেম বলে এক বস্তুর ব্যাপারটা উপলব্ধি করি । কিন্তু কেউ প্রকাশ করিনা । দুজনে বেনারসের গঙ্গার বুকে মণিকর্ণিকা ঘাট, হরিশ্চন্দ্র ঘাট ইত্যাদি নৌকা বিহার করি । আমি বোঝাতাম দেখ এই মণিকর্ণিকা ঘাটে কোনদিন চিতা নেভেনা । মানুষ জন্মানর পর মৃত্যু নিশ্চিত বলে জানে কিন্তু সেটা জেনেও নানা অপকর্ম করে । শেষটা তো দেখছ ওই আগুনে দগ্ধ হয়ে যাবে নশ্বর দেহ খানি । কি হবে এই অহংকার , টাকা ,পয়সা , প্রতিপত্তির ? কেউ ভাবেনা , সে এই দেহ ত্যাগ করলে কোন কিছু সঙ্গে নিয়ে যাবেনা তবুও মানুষের স্বভাব বদলায়না ।
- ও বলে তুমি ওই রামকৃষ্ণ মিশনে গিয়ে সন্ন্যাসী হয়ে গিয়েছ । সংসারে যখন জন্ম নিয়েছ সংসার ধর্ম পালন কর । তোমার সব কথা দর্শন শাস্ত্রের কিছু নিতি বাক্যের মতন ।
- ওটা তোমার ভুল ধারনা নিবেদিতা । আমিও মানুষ রক্ত মাংসের মানুষ । আমার মধ্যেও প্রেম, প্রীতি ,ভালোবাসা , দয়া , মায়া , ক্ষমা সব আছে কিন্তু সেটা ঈশ্বরের স্বত্বাকে উপলব্ধি করে তার প্রতি ভক্তিভাব রেখে জীবন তরী বাইতে হবে । নিজের কর্মের প্রতি নিষ্ঠাবান হয়ে এক শৃঙ্খলিত জীবন শৈলী নিজেকে বেছে নিতে হবে তবেই তুমি জীবনে এগুবে ।
- তুমি থাকো তোমার শৃঙ্খলিত জীবন শৈলী নিয়ে । আমাকে আমার মত থাকতে দাও । তুমি বোধহয় হৃদয়ঙ্গম করতে পারছনা আমি কি বলছি এবং কি ভাবছি !
- আমি বুঝি সব বুঝি ।
- ছাই বোঝ ! তুমি একটা নপুংসক সন্ন্যাসী । আমি তোমার কাছে আছি অথচ তোমার কোন অনুভূতি নেই । তুমি আমাকে মড়া পোড়ানো দেখানোর জন্য এখানে আনলে ?
- আমি আমতা আমতা করে বলি এটা তোমার আমার পুরুষত্বের প্রতি অপমান। তুমি আমাকে আঘাত করলে নিবেদিতা । আমি সত্যি সেরকম কিছু ভেবে তোমাকে আনিনি এখানে । আমি তোমাকে সত্যি ভালোবাসি কিন্তু ঈশ্বরের নামে শপথ নিয়ে বলছি সেটা দৈহিক নয় বরং মনের দিক থেকে ভালোবাসা । আমিতো তোমাকে আমার আদর্শে অনুপ্রাণিত হতে বলিনি।ওটা সম্পূর্ণ আমার চিন্তাধারা ।
- ঠিক আছে এবার চল । সন্ধ্যে হয়ে আসছে । তোমার দ্বারা ওই বই পড়া আর লেকচার দেওয়া ছাড়া কিছু হবেনা । নিবেদিতা বলে মাস্টার্স ডিগ্রির পর তুমি কি করবে?
- আমি চট করে উত্তর দি পড়াশুনোর কোন শেষ নেই তাই পি. এচ. ডি অবশ্যই করবো যদি সুযোগ পাইত । তুমি ?
- আমি জানতাম তুমি ওই উত্তরটা দেবে বলে । না , আর আমার দ্বারা পড়াশুনো বোধহয় হবেনা । আমি বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে । আমার কোন ভাই বোন নেই । তাই বাবা আর দূরে ছাড়বেন না । বাবা রিটায়ার করেছেন । তাই আমাকে কাছে থাকতে বলেন । আমি বাবার একসঙ্গে ছেলে এবং মেয়ে দুই । তাছাড়া আমাকে আমার পছন্দ মতন জীবন সঙ্গী বাছতে হবে । আমি সন্ন্যাসিনী হয়ে তোমার ছায়া সঙ্গী হতে চাইনা ।
- ও । আমি কিন্তু তোমাকে আমার ছায়া সঙ্গী হতে কোনদিন বলবোনা । তবে এইজন্য পড়া ছেড়ে দেবে ! এটা একটা যুক্তি হল ! আমি ওর দিকে তাকাই ।
-উপায় নেই আমি মেয়ে । তোমার মতন ছেলে হলে হয়তো সিদ্ধান্ত বদলাতাম । আমাকে, বাবা মার দিকটাও তো দেখতে হবে নিজের দিকটাও দেখতে হবে ।
- অবশ্যই দেখবে তবে নিজের কেরিয়ার পড়াশুনো তার জন্য জলাঞ্জলি দিতে পারনা । অবশ্য এটা আমার ব্যক্তিগত মতামত । আসলে আমি চাই তুমি আমার সঙ্গে পি.এচ.ডি. কর ।
- সম্ভব নয় । আমি বেনারস অবধি এসেছিলাম তোমার মতন এক মেধাবী পুরুষের সান্নিধ্য পাবো বলে । কিন্তু এখানে এসে দেখলাম তুমি পড়া আর ওই রামকৃষ্ণ মিশন ছাড়া কিছুই জাননা । পৃথিবীতে এসেছ তার বৈচিত্র্য অনুভব কর । জীবনকে উপভোগ কর । এটাই সংসার ধর্ম ।
যে বয়েসের যা ধর্ম তাই পালন কর । ছাত্রাবস্থায় ব্রহ্মচর্য পালন করেছ তার ফল পেয়েছ । এখন ভালো কোন চাকরি তুমি অনায়াসে পাবে । তবে ঠিক আছে পি.এচ.ডি তোমার স্বপ্ন সেটা পূরণ কর কোন বাধা নেই কিন্তু তা বলে সন্ন্যাস ! সনাতন ধর্ম কি বলে ১) ব্রহ্মচর্য , ২)গার্হস্থ্য , ৩)বানপ্রস্থ , ৪) সন্ন্যাস । তাই সংসার ধর্ম পালন না করে এক লাফে সন্ন্যাস নেওয়া মানে ভগবানের সৃষ্টির বিরুদ্ধে যাওয়া নয়কি ?
-দেখ তোমার যুক্তি আলাদা আমার যুক্তি আলাদা । তোমার নামের সার্থকতা তুমি পূরণ করতে পারলেনা । এ.পি.জে আব্দুল কালাম তিনি চিরকুমার । পৃথিবী বিখ্যাত বিজ্ঞানী । ভেবে দেখ তাঁর কথা । তিনি কেন এতো পড়াশুনো করে মিসাইল ম্যান হয়েছিলেন ? তিনিতো অত্যন্ত গরিবের ঘরের এক মেধাবী ছাত্র ছিলেন ।
-চল অনেক যুক্তি তর্ক হল । ওই স্বামীজিরা তোমার মগজ ধোলাই করেছে । না আমি আমার নামের সার্থকতা করতে চাইনা কারন আমি স্বামী বিবেকানন্দর ভগিনী নিবেদিতা হতে চাইনা ।বললাম তো মাকে আমার মত থাকতে দাও । আমাকে আমার রাস্তা দেখতে হবে ।
এই ঘটনার পরথেকে নিবেদিতা আর আমার সঙ্গে কোন যোগাযোগ রাখেনি । আমিও চাইনি রাখতে ।
আমি তখন যুবক এবং রামকৃষ্ণ মিশনে যাতায়াত আছে । আমার দীক্ষা হয়নি তবে স্বামীজি বলেছেন নিজের যোগ্যতার জন্য তোমাকে আরও পড়াশুনো করতে হবে । উচ্চশিক্ষা যেকোনো ধর্ম গুরুর পক্ষে অনেক প্রয়োজন । রামকৃষ্ণর পথ অনুসরণ করতে চাও তার জন্য নিজেকে যোগ্য প্রমাণ কর । নিজেকে বিকশিত কর । জ্ঞানের শেষ নেই । জ্ঞানী তাকেই বলে যে সংসারের সমস্ত মোহ মায়া ত্যাগ করে সত্যের সন্ধানে নিজেকে উৎসর্গ করে, জ্ঞান বিতরণে নিজেকে প্রস্তুত করে । জ্ঞান আহরণের যেমন শেষ নেই জ্ঞান বিতরণের ঠিক সেইরকম শেষ নেই ।
- আমি বলি সত্যি তুই নিবেদিতার মতন মেয়েকে প্রত্যাখান করতে পেরেছিস ? তুই সত্যি ব্রহ্মচারী । তোদের কেমিস্ট্রি জমলোনা । কিরে তুই ? আমার খুব খারাপ লাগছে মেয়েটার জন্য । ও সত্যি তোকে খুব ভালোবাসতো । আমি সেই প্র্যাক্টিকাল ক্লাসেই বুঝেছিলাম । ওর নজর তোর ওপর থাকত । কারুর সঙ্গে কথা বলেনা । খুব ইন্টারেস্টিং লাগছে তোর কথাগুলো । সত্যি তুই একদম আলাদা হয়ে গিয়েছিস । পদ্মপাতায় জল ঢল ঢল করার মতন সংসারে থেকেও তুই সংসারে নেই । এটা কম স্বার্থ ত্যাগ নয় ।
- ঠিক স্বার্থত্যাগ কিনা জানিনা 1989 সালে আমার বাবা ইহ ধাম ত্যাগ করেন ঠিক তার এক বছর পর আমার মা । আমার তলায় এক বোন । সে তখন স্নাতক ডিগ্রি সম্পূর্ণ করে বি. এড করছিলো । আমি তাকে ফিন্যান্স করতে থাকি কারণ আমি ডক্টরেট এর জন্য সিলেক্ট হয়েছি বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ে । একটা প্রাইভেট কলেজে কিছুদিন কেমিস্ট্রি পড়াতাম সেখান থেকে যা উপার্জন হত তার অর্ধেক বোনকে মানি অর্ডার করে দিতাম । বোন পরে স্কুলের শিক্ষিকার চাকরি পায় আমাদের গ্রামের স্কুলে বলেশ্বর জেলায় । ব্যাস আমার আর বন্ধন রইলোনা । আমার ফেলোশিপ মঞ্জুর হয়েগেল । যা টাকা পেতাম আমার পড়াশুনোর খরচ,খাওয়া দাওয়ার, হোস্টেলের খরচ সব ঐ টাকায় হয়েযেত ।
- তোর নিবেদিতার কি হল?
- আমার নিবেদিতা ? ও কখনই আমার ছিলোনা । ও চেয়েছিল আমাকে পথভ্রষ্ট করে ওর অনুগামী করে ওর গোলাম করে রাখা । সেটা আমার দ্বারা সম্ভব নয় । আমি যে সংস্থায় নিজের জীবন উৎসর্গ করতে চাই তাতে ওর মতন মেয়ের কোন জায়গা নেই । ওর ব্যাপার আমি জানিনা কারন ও মাস্টার্স ডিগ্রি কমপ্লিট করে ওর বাবা মার কাছে ফিরে যাবে বলে বলছিল । হয়তো চলে গিয়েছিলো আমি খবর রাখিনি ।
- সেকিরে ওর সঙ্গে কোন যোগাযোগ রাখিসনি?
- না আমার লক্ষ অন্য ছিল । উচ্চশিক্ষা অর্জন করতে গেলে ওসব দিকে মন না দেওয়াই ভালো । আমার গুরুজী তাই বলেন । ঠিক বললাম?
- ঠিক সেই সময় হাতে চায়ের কাপ আর জল খাবারের ডিস নিয়ে গিন্নি পরিবেশন করেন । নিন অনেকক্ষণ কথা বলছেন একটু গলা ভিজিয়ে নিন ।
একসঙ্গে সকলে বসে চা জলখাবার খেলাম ।
আমার স্ত্রী, অর্ণব কে আজকে আমাদের বাড়িতে মধ্যাহ্ন ভোজনের জন্য অনুরোধ করেন । বলেন যৎসামান্য রান্না করবো । আপনি সন্ন্যাসী মানুষ আপনাকে খাওয়াতে পারলে আমার নিজের আত্মতৃপ্তি হবে । 
 খাওয়ার ব্যাপারটা অর্ণব অনিচ্ছাসত্ত্বে সম্মতি দেয় ।
গিন্নি রান্নাঘরে চলে যান আজকের রান্না করতে ।
অর্ণব বলা শুরু করে । আমি Ph. D থিসিস জমা দিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রী নি ।  সব সময় আমি পরম পুরুষ প্রভু শ্রী রামকৃষ্ণর আশীর্বাদ পেয়েছি তাই মনে মনে স্থির করি এইবার দীক্ষা নিয়ে নিজের জীবন  পরম  পুরুষ শ্রী রামকৃষ্ণ পরমহংসর আশ্রমেই কাটাবো । 

2 comments:

  1. খুব সাবলীল ভাবে লেখা একটা সুন্দর গল্প । খুব ভাল লাগল ।

    ReplyDelete
  2. ধন্যবাদ অভিক l ভালো লাগলো তোমার প্রতিক্রিয়া l

    ReplyDelete