Tuesday, September 7, 2021

বিদায় !!!! - তন্ময় সেন

বিদায় !!!!
- তন্ময় সেন

আমার মেয়েকে বিদায় দিলাম।
যা জ্বালাতন করতো! বাড়ির সব্বাইকে ছুটিয়ে মারতো। বাড়িতে ফিরলেই তার সাথে খেলতেই হবে। নচেৎ চিৎকার।
মুখের সামনে যা পেত সবই তার দৌলতে তিন তলার  ছাদে আশ্রয় পেত।
সময়ের অপচয় সে পছন্দ করে না। তাই সদাই খেলা আর কাজে ব্যস্ত।
আনন্দের বহিঃপ্রকাশ গাল চাটা কিংবা হালকা দাঁতের স্পর্শ, সঙ্গে লেজের নাচন।
পা বেঁকিয়ে তার অদ্ভুত নাচ আর  সামনের দু'য়ের পায়ের মাঝে মাথা রেখে মিষ্টি চাউনি আজ ও মনকে আন্দোলিত করে।
বিদায় মুহূর্তে তার কুঁই কুঁই  কান্না আমার সমস্ত হৃদয় মনে এক বিষাদের সুরের ছড় তোলে। আমি অসহায় ভাবে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে  তাকে ছেড়ে এলাম।
অথচ সে আমাদের কেউ ছিল না। একমাসে সমস্ত দূরত্ব সরিয়ে কতটা আমাদের আপন করেছিল, আজ তা বেশ অনুভব করছি। মানুষের কাছে যা অধরা ছিল , ও আমাকে দিয়ে গেছে।দৌড়ে  এসে কোলে ঝাঁপ, নিঃস্বার্থ আদর ,ভালোবাসা। অতি উৎসাহী, পরিশ্রমী, খেলা-প্রেমী এই মেয়ে আমার হৃদয়ের মণিকোঠায় স্থান করে নেয়।

বাড়ির গেটে আটক পড়া অন্যের ফেলে যাওয়া এই ছোট্ট মেয়ের করুন কান্না আমাকে তার কাছে নিয়ে আসে। অনেক কষ্টে যখন তাকে লোহার গেটের পাতি হতে মুক্ত  করে ছেড়ে দিলাম, পাড়ার অন্য কুকুররা তাকে বেপাড়ার মেয়ে বলে আক্রমণ করলো। স্বভাব মত গলা টিপে তাকে মারার চেষ্টা। ওদের ঝড়ো আক্রমণ থেকে লাঠির সাহায্যে মেয়েটিকে উদ্ধার করি। মায়ার বাঁধন আটক পড়ি। আসলো প্রতিবেশীর বাড়ি হতে খাঁচা। আশ্রয় পেলো আমাদের দোতলায়। ধীরে ধীরে আপন হতে আপনতম হয়ে উঠলো বাড়ির আর একটি মেয়ে হিসেবে। গিন্নি নাম রাখলেন ছুমছুমি। তার আহ্লাদের সীমা পরিসীমা নেই। ধীরে ধীরে সমস্ত বাড়ি তার দখলে। বাধ সাধলো বাড়ির পুরনো বিড়ালরা। তার এই স্বাধীন আচরণ তারা মেনে নিতে পারে না । বেশির ভাগ মেয়েকে দেখলেই দৌড়। কিন্তু দুজন পাল্টা আক্রমণ। মেয়েটি সবার সাথে বন্ধুত্ব চেয়েছিল। বিড়াল তা বুঝতে না পারায় আমরা পড়ি বিপদে। প্রতি মুহূর্তে ভয়ে থাকতাম।এই বুঝি বিপদ এলো।
পাশের বাড়ির ছেলে নিয়ে সমস্যা। যেদিন রাস্তায় তার ঠ্যাং ভেঙে দেয়, সেদিন থেকে তার আশ্রয় হয় পাশের বাড়িতে। দলছুট এই ছেলে সারাদিন রাত জানলায় চিৎকার করে তার একাকিত্ব জানানোর জন্য। পাড়ার লোকেদের সাথে প্রতিবেশীও বিপদে পড়েন। তাই সবদিক ভাবনা করে আমাদের মেয়েকে তুলে দিলাম প্রতিবেশীর হাতে। দুজনের দারুন বন্ধুত্ব হয়েছে। মাঝে ও কে দেখতে গেছলাম। কত আদর পেলাম,কত ভালোবাসা, ফিরে আসতে পারছিলাম না। ও আমার সাথে আসতে চেয়েছিল। আনতে পারিনি। শুনেছিলাম ও কুঁই কুঁই কেঁদেছিল বেশ কিছু সময় ধরে।আজও ছাদে দেখা হলে, আমাদের ডাকে।
আজও সেই বিদায় আমাকে কষ্ট দেয়।
ঘর হতে তাকে বিদায় দিলাম ঠিকই কিন্তু হৃদয় মনে আজও তার ভালোবাসার অনুরণন ।প্রতিচ্ছবি এই লেখা। ক্ষমা করিস বেটি, ভালো থাকিস। 

No comments:

Post a Comment