Tuesday, September 21, 2021

বোধনের পূর্বেই ঘটে গেল বিজয়া - রূপশঙ্কর আচার্য্য

বোধনের পূর্বেই ঘটে গেল বিজয়া

- রূপশঙ্কর আচার্য্য


 বর্ষার দিন তাই দু তিনদিন খুব বৃষ্টি হচ্ছে।
ধীরে ধীরে নদীর জল প্লাবিত হচ্ছে,কয়েক টা ড্যাম থেকে জল ছাড়া হয়েছে সংবাদ মাধ্যমে জানালো।

বিকেল থেকে সমগ্র শহর জলের তোলায়, অর্থাৎ বন্যা হয়ে গেছে বললে ভুল বলা হবে না।

কিন্তু বৃষ্টি থামার নাম নেই,ওপরেও জল নীচেও জল ।
যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বললেই হয়।

এদিকে শ্যামের স্ত্রীর প্রসব যন্ত্রণা তীব্র থেকে তীব্রতর হতে শুরু করেছে,শরীর খুবই ক্ষীণ হয়ে আসছে।ধাত্রী মা বললেন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বা হাসপাতাল নিয়ে যেতে।

শ্যামের মাথায় হাত।
কি করে এই দুর্যোগে নিয়ে যাবে?
প্রতিবেশীরাই এগিয়ে এল এবং একটি ছোট্ট ডিঙ্গি যেমন তেমন করে জোগাড় করে নিয়ে যাওয়া হল,এদিকে ঠাকুর একটু  সহৃদয় হলেন,বৃষ্টি পড়া ততক্ষণে বন্ধ হয়ে গেল।
ওদিকে গর্ভবতী মায়ের অবস্থা খুবই খারাপের দিকে।
অবশেষে হাসপাতালে পৌঁছে গেল।
চিকিৎসা শুরু হয়েছে।

সবাই সুখবরের জন্য অপেক্ষায় আছে।

এমন সময় এক দিদিমণি এসে বললেন কন্যা হয়েছে,মা ও মেয়ে দুজনেই ভালো আছে।

যাক বাবা সবাই শান্তি পেলাম।
সবাই প্রার্থনা করলো ঈশ্বরের 
কাছে,যেন ওরা ভালো থাকে।

 কিছু দিন পরই হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ী ফিরে এলো।
যেহেতু বন্যার সময় শ্যামের মেয়ে হয়েছে  ,আবার আর কিছুদিন পরেই মা মহামায়ার আগমন,তাই মেয়ের ডাক নাম রাখা হল "বন্যা" ও ভালো নাম রাখা হল "মহামায়া"।

 প্রকৃতির নিয়ম অনুযায়ী সময় থেমে থাকে না।

এদিকে অভাব তো আর শুনবে না বড় হওয়া, লেখা পড়া,সংসার পরিচালনার দায়িত্ব কে থামিয়ে রাখা।

অনেক কষ্ট করে হলেও এই মেয়েকে মানুষের মত মানুষ করবে শ্যাম।
তার জীবনের স্বপ্ন তার মেয়েকে দিয়ে পূরণ করবে সে।
শ্যাম একটা ব্যান্ডের দলে বাজনা বাজায়, অর্থ্যাৎ বাজনদার হিসাবে কাজ করে।আবার অন্য সময়ে ঠিকাদারী করে সংসার চালায়।কখনও কখনও ছোট খাটো অনুষ্ঠানে রান্নার জোগাড়-এর ও কাজ করে উপার্জন করার চেষ্টা করে ।

দেখতে দেখতে দশ বছর হয়ে গেল,মেয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা শেষ করেছে।
 সে এখন শহরের বিদ্যালয় এ পড়ছে। খরচ বেশী ,তাই তার মা বাবা দুজনেই একটু বেশী অর্থের জন্য ধুপ পাকানো, পোশাকে বোতাম লাগানোর কাজও করে অন্য কাজের ফাঁকে।
তাদের দুজনের ইচ্ছা এ বছর মেয়ের জন্মদিনে পাড়া প্রতিবেশীদের নিয়ে একটু আনন্দ করবে ,খাওয়া দাওয়া করবে সকলে মিলে একসাথে।

কিন্তু ভাগ্য সহায় হল না,কারণ সামনেই মহামায়ার আগমন তাই কলকাতায় ভালো বায়না পেয়েছে তাদের ব্যান্ডের দল ।তাই চতুর্থী পঞ্চমী করেই যেতে হবে।

মেয়ে বন্যা এসে বলল বাবা মন খারাপ করো না,ফিরে এসেই আমার জন্মদিন পালন  
করবে।
 আরে সে কি করে হয় মা?কেন হয় না?তোমরা  জন্মদিনের দিন মন্দিরে পূজা দিয়ে দেবে এবং পরে কলকাতা থেকে ফিরে এসে অনুষ্ঠান করবে।

বাবা বেরিয়ে পড়ল কলকাতায়। মেয়ের  তা দেখে কি আনন্দ!মেয়ে বাবার হাতে একটি কাগজ দিল,যাতে লেখা -আমার সোনা বাবা সুস্থ ভাবে যাও ও মায়ের আরাধনা শেষে সুস্থ ভাবে ফিরো।
তার মা প্রতিমা এগিয়ে এসে মাথার উপরে জোড়হাত করে বলে উঠলো দুগ্গা দুগ্গা।

আজ  মহাপঞ্চমী।আজ বিদ্যালয় দ্বিতীয় ক্লাশের পর পূজার ছুটি হয়ে যাবে।

প্রতিদিনের মত আজ বন্যা বিদ্যালয় গেল।আজ কিন্তু তার জন্মদিন।দশ বছর আগে এই দিন বৃষ্টি বাদল বন্যার দিনেই শ্যাম ও প্রতিমার কন্যা বন্যা পৃথিবীতে এসেছিল।
সব বন্ধুরা ওকে কত গিফট ও চকলেট দিল।বন্যা শিক্ষক মহাশয় ও শিক্ষিকা মহাশয়া দের প্রনাম করলো
শিক্ষক ও শিক্ষিকারা সবাই বন্যা কে আশীর্বাদ করলেন ও বললেন অনেক বড় মনের মানুষ হও।

কে জানতো এটাই ওর জীবনের শেষ দিন।

বিদ্যালয় ছুটির পর বাড়ী যেতে যেতে দেখতে পেল একটি বাচ্চা পুকুরে ডুবে যাচ্ছে,ওর বন্ধুরা দেখছে আর বলছে বাঁচাও বাঁচাও।কিন্তু কেউ জলে নামলো না,বন্যা জলে ঝাঁপ দিয়ে বাচ্চাটাকে বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা করছে ।অবশেষে বাচ্চাটা কে সে তুলে আনলো জল থেকে।
সবাই তখন বাচ্চাটার দিকে এগিয়ে গেলো এবং ব্যস্ত হয়ে পড়লো তার জ্ঞান ফেরানোর জন্য।বাচ্চা টা সুস্থ হয়ে গেল।

কিন্তু যে তুলে আনলো তার আর জ্ঞান ফিরলো না,শ্বাসনালিতে জল ঢুকে গেছে,সে চির বিদায় নিল।
এই জন্মদিনেই তার মৃত্যু দিন হয়ে গেল।মা প্রতিমা পাথর প্রতিমা হয়ে গেছে।প্রতিবেশী র কারো মনে ভালো নেই ক্ষিদে, তৃষ্ণা সব হারিয়ে গেছে এক লহমায়।

কলকাতায় বাবা শ্যাম তার মেয়ের জন্য ও স্ত্রীর জন্য পোশাক শাড়ি কিনেছে।

আজ মায়ের বোধন।

সকালে দেখা যায়  বসুমল্লিক(কোলকাতার এই বাড়ীতে এসেছে শ্যাম) বাড়ীর উঠানে আজকের সংবাদের কাগজ টা পড়ে আছে।
জল জল করে বড় বড় হরফে লেখা--*বোধনের পূর্বেই ঘটে গেলো বিজয়া*  ।
শ্যামের সঙ্গীরা তা দেখার পর কি বলবে ভে পাচ্ছে না শ্যাম কে?লেখা আছে একটি পাঁচ ছয় বছরের শিশু কে পুকুর থেকে বাঁচাতে দশ বছরের কন্যার মৃত্যু।
এটা তো আর গোপন করা যায় না।
শ্যাম কে অনেক কষ্ট করে সত্য তা জানাতে হল।

কিন্তু কি করবে শ্যাম তাকে তো বিসর্জনের বাজনা কান্না দিয়ে বাজানোর জন্য বিধাতা পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন।

একি আগমন?     

"বোধনের পূর্বেই ঘটে গেল বিজয়া"

No comments:

Post a Comment